৬ ঘণ্টা পর শিমুলিয়া-কাঁঠালবাড়ি নৌরুটে ফেরি চলাচল শুরু | The Daily Star Bangla
০১:০১ অপরাহ্ন, আগস্ট ০১, ২০১৯ / সর্বশেষ সংশোধিত: ০১:০৪ অপরাহ্ন, আগস্ট ০১, ২০১৯

নাব্যতা সঙ্কট

৬ ঘণ্টা পর শিমুলিয়া-কাঁঠালবাড়ি নৌরুটে ফেরি চলাচল শুরু

নিজস্ব সংবাদদাতা, মুন্সীগঞ্জ

শিমুলিয়া-কাঁঠালবাড়ি নৌরুটে ফেরি চলাচল সাড়ে ৬ ঘণ্টা পর আবার শুরু হয়েছে। এর আগে নাব্যতা সঙ্কটে দক্ষিণাঞ্চলের ২১ জেলার সঙ্গে ঢাকার চলাচলের গুরুত্বপূর্ণ এই নৌরুট গতকাল রাত ১১টা ৫৫ মিনিটে বন্ধ হয়ে যায়।

আজ (১ আগস্ট) সকালে আবার ফেরি চলাচল সচল হলেও সব ফেরি চলতে পারছে না। নয়টি ফেরি চলছে খুঁড়িয়ে খুঁড়িয়ে। একদিকে পদ্মায় তীব্র স্রোত আর অন্যদিকে নাব্যতা সঙ্কট- এসব কারণে ফেরি চলাচল মারাত্মকভাবে ব্যাহত হচ্ছে।

বেশ কয়েকদিন থেকে এই রুটে ফেরি কখনো চলছে, কখনো বন্ধ থাকছে, কখনো ফেরি ডুবোচরে আটকা পড়ছে, কখনো স্রোতের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে সব ফেরি চলতে পারছে না। এভাবেই চলছে এই রুটের ফেরি সার্ভিস।

এদিকে, শিমুলিয়া ঘাটে আটকা পড়েছে প্রায় সাড়ে ৪০০ যানবাহন। আসন্ন ঈদে এ নৌরুটে বিপর্যয়ে পড়ে যাত্রীদের চরম দুর্ভোগের আশঙ্কা করা হচ্ছে।

বিআইডব্লিউটিসির সহকারী মহাব্যবস্থাপক মো. নাসির উদ্দিন বলেন, নাব্যতা সঙ্কট নিরসনে পাঁচটি ড্রেজার দিয়ে পলি সরানো হচ্ছে। আজ সকালে লৌহজং টার্নিং পয়েন্টের ভাটিতে গতবারের বিকল্প চ্যানেলটি ড্রেজিং শেষে খুলে দেওয়া হয়েছে। বিকল্প চ্যানেলটি দিয়েই পরীক্ষামূলকভাবে এখন ফেরি চলাচল শুরু হয়েছে। তবে ফেরি পারাপারে আগের চেয়ে বেশি সময় লাগছে।

তিনি বলেন, বর্তমানে ১৮টি ফেরির মধ্যে নয়টি ফেরি দিয়ে সার্ভিস সচল রাখার চেষ্টা করা হচ্ছে।

পদ্মায় পলি পড়ে নাব্যতা সঙ্কট সৃষ্টি হওয়ায় ফেরিগুলো চলতে পারছে না। ফেরি চলাচলের জন্য পর্যাপ্ত গভীরতা নেই এই নৌরুটে। লৌহজং টার্নিং পয়েন্টের ডাউন চ্যানেলের মুখে নাব্যতা সঙ্কট দেখা দেওয়ায় ফেরিগুলো চ্যানেল পারি দিতে পারছে না। এখানে ফেরি চলাচলের জন্য পর্যাপ্ত পানি নেই। লৌহজং টার্নিং পয়েন্টের মুখে আসলেই নাব্য সঙ্কটের কারণে ফেরিগুলো ডুবো চরে আটকে যাচ্ছে।

গতকাল রাত ১১টার দিকে রো রো ফেরি এনায়েতপুরী শিমুলিয়া ঘাট থেকে ছেড়ে গিয়ে লৌহজং টার্নিং পয়েন্টের ডাউন মুখে ডুবো চরে আটকে যায়। রাতভর চেষ্টার পর আজ ভোর ৬টায় ফেরিটি উদ্ধার করা হয়। এর আগে গত পরশু লৌহজং টার্নিং পয়েন্টের মুখের আপ চ্যানেলটিও নাব্যতা সঙ্কটের কারণে বন্ধ হয়ে যায়।

মাওয়া ট্রাফিক জোনের টিআই হিলাল উদ্দিন জানিয়েছেন, বেশ কিছুদিন ধরে ফেরি চলাচলে বিঘ্ন হওয়ায় ঘাটে পারাপারের জন্যে শতাধিক গাড়ি অপেক্ষায় রয়েছে। কিন্তু, গতরাত থেকে ফেরি চলাচল বন্ধ হয়ে যাওয়ায় এ যানজট আরো দীর্ঘায়িত হচ্ছে। এতে যাত্রীদের দুর্ভোগ বেড়েছে।

Stay updated on the go with The Daily Star Android & iOS News App. Click here to download it for your device.

Grameenphone and Robi:
Type START <space> BR and send SMS it to 2222

Banglalink:
Type START <space> BR and send SMS it to 2225

পাঠকের মন্তব্য

Top