মেট্রোরেল: এপ্রিলে ট্রেন এলে জুলাইয়ে ট্রায়াল | The Daily Star Bangla
০৯:২৪ অপরাহ্ন, ফেব্রুয়ারি ০৫, ২০২১ / সর্বশেষ সংশোধিত: ০৯:৩২ অপরাহ্ন, ফেব্রুয়ারি ০৫, ২০২১

মেট্রোরেল: এপ্রিলে ট্রেন এলে জুলাইয়ে ট্রায়াল

নিজস্ব প্রতিবেদক

মেট্রোরেলের প্রথম ট্রেন আগামী এপ্রিলে দেশে আসবে বলে আশা করা হচ্ছে। ফলে আগামী জুলাই থেকে শুরু হতে পারে মেট্রোরেলের ট্রায়াল রান। এমনটিই জানিয়েছেন সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা।

যদিও চলতি বছরের জানুয়ারি পর্যন্ত মেট্রোরেল প্রকল্পের ৫৬ দশমিক ৯৪ শতাংশ কাজ সম্পন্ন হয়েছে। তবে, সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ বলছে, তারা পূর্ব-নির্ধারিত লক্ষ্য অনুযায়ী ডিসেম্বরের মধ্যে কাজ সম্পন্ন করার আপ্রাণ চেষ্টা করছেন।

ঢাকা মাস ট্রানজিট কোম্পানি লিমিটেডের (ডিএমটিসিএল) ব্যবস্থাপনা পরিচালক এম এ এন ছিদ্দিক বলেন, ‘ট্রেনগুলো পরীক্ষা করার পর কর্মকর্তারা বলতে পারবেন যে, ডিসেম্বরের মধ্যে কাজ শেষ করার লক্ষ্যটি পূরণ করা যাবে কি না।’

মাস র‌্যাপিড ট্রানজিট লাইন-৬ শীর্ষক প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করছে রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন ডিএমটিসিএল। ২২ হাজার কোটি টাকা ব্যয়ে উত্তরা তৃতীয় ধাপ থেকে মতিঝিল পর্যন্ত ২০ দশমিক এক কিলোমিটার ব্যাপ্তির এই মেট্রোরেল লাইন তৈরি হচ্ছে।

একটি মাসিক প্রতিবেদনের তথ্য অনুযায়ী, প্রকল্পটির প্রথম ধাপের উত্তরা থেকে আগারগাঁও পর্যন্ত কাজের অগ্রগতি জানুয়ারি অবধি ৮০ দশমিক ২১ শতাংশ। দ্বিতীয় ধাপের আগারগাঁও থেকে মতিঝিল পর্যন্ত কাজের অগ্রগতি ৫১ দশমিক ২৬ শতাংশ। আর তৃতীয় ধাপে ট্র্যাকস স্থাপন করা ও ট্রেনের বগিসহ অন্যান্য সরঞ্জামাদি সংগ্রহ করার কাজের অগ্রগতি ৪৬ দশমিক ৩৩ শতাংশ।

জাপানে তৈরি হওয়া পাঁচ জোড়া ট্রেন পরীক্ষা করে দেখতে ডিএমটিসিএলের একটি দলের গত মাসে সেখানে যাওয়ার কথা ছিল। কিন্তু, করোনাভাইরাসের কারণে জাপানে নিষেধাজ্ঞা থাকায় সেই পরিকল্পনা স্থগিত করা হয়।

ডিএমটিসিএলের ইস্কাটনের কার্যালয় থেকে এম এ এন ছিদ্দিক সাংবাদিকদের বলেন, জাপানে বিধিনিষেধের মেয়াদ মার্চের মাঝামাঝি পর্যন্ত বাড়ানোর কারণে ট্রেনগুলো পরীক্ষার জন্য জাপান ইন্সপেকশন কোম্পানি লিমিটেড নামের একটি ফার্মকে নিয়োগ দেওয়া হয়। আমাদের কর্মকর্তারা বাংলাদেশ থেকেই ট্রেনের বগি ও ইঞ্জিন দেখেছেন।

তিনি জানান, ইতোমধ্যে পরীক্ষা শেষ হয়েছে। প্রথম সেট ট্রেনটি আগামী ২০ ফেব্রুয়ারি জাপানের কোব বন্দর থেকে বাংলাদেশের উদ্দেশে রওনা হতে পারে এবং আগামী ২৩ এপ্রিল সেটি উত্তরার দিয়াবাড়ির মেট্রোরেলের ডিপোতে এসে পৌঁছাতে পারে।

তিনি আরও জানান, কর্তৃপক্ষ প্রথমে ট্রেনের ইনটেগরেটেড পরীক্ষা চালাবে এবং এরপর প্রথম পাঁচটি স্টেশনের মধ্যে ট্রায়াল রান পরিচালনা করবে। ছয় মাস ধরে এই ট্রায়াল রান চলতে পারে।

আগামী ১৬ জুন দ্বিতীয় ট্রেনটি ও ১৩ আগস্ট তৃতীয় ট্রেনটি ডিপোতে এসে পৌঁছাতে পারে বলেও জানান তিনি।

জাপানের তৈরি ট্রেন জাপানি প্রতিষ্ঠান সঠিকভাবে পরীক্ষা করেছে কি না, জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘নিলামের মাধ্যমে ফার্মটি ঠিক করা হয়েছে। সেখানে পাঁচটি প্রতিষ্ঠান অংশ নিয়েছিল। এই ফার্মটির আন্তর্জাতিক খ্যাতিও রয়েছে।’

মেট্রোরেল প্রকল্পটির মূল বাস্তবায়নকাল ছিল ২০১২ থেকে ২০২৪ সাল পর্যন্ত।

পরবর্তীতে ২০১৯ সালের মধ্যে উত্তরা থেকে আগারগাঁও এবং ২০২০ সালের মধ্যে আগারগাঁও থেকে মতিঝিল রুটে মেট্রোরেল সার্ভিস চালু করার নির্দেশ দেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

নির্ধারিত সময়সীমার মধ্যে প্রকল্প বাস্তবায়নে ব্যর্থ হওয়ার পর ২০১৯ সালের মে’তে কর্তৃপক্ষ জানায়, ২০২১ সালের ১৬ ডিসেম্বর দেশে যখন স্বাধীনতা সুবর্ণজয়ন্তী উদযাপন করা হবে, তখনই প্রকল্পটি চালু করা হবে।

চলতি বছরের ডিসেম্বরের মধ্যেই মেট্রোরেল চালু করা হবে কি না, জানতে চাইলে ছিদ্দিক বলেন, ‘লক্ষ্য অর্জনে আমরা যথাসাধ্য চেষ্টা করে যাচ্ছি। ইনটেগরেটেড পরীক্ষার পর আমরা নিশ্চিতভাবে তা বলতে পারব।’

গত মাসে সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের সাংবাদিকদের বলেছেন, আগামী বছরের জুনের মধ্যে প্রকল্পটির কাজ শেষ হবে।

এমআরটি-৬ লাইন সম্প্রসারণ

প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা মেনে ২০১৯ সালে ডিএমটিসিএল কর্তৃপক্ষ এমআরটি-৬ (ম্যাস র‌্যাপিড ট্রানজিট) লাইন কমলাপুর রেলস্টেশন পর্যন্ত বর্ধিত করার পরিকল্পনা করে।

যদিও এই পরিকল্পনায় বাংলাদেশ রেলওয়ে (বিআর) কোনো আপত্তি জানায়নি, তবে, তারা বলেছে, ডিএমটিসিএলের এই নকশার বাস্তবায়ন কমলাপুর রেলস্টেশনকে মাল্ডিমোডাল ট্রান্সপোর্ট হাবে (এমএমটিএইচ) রূপান্তর প্রক্রিয়াকে বাধাগ্রস্ত করবে।

গত বছরের ২৪ নভেম্বর বাংলাদেশ রেলওয়ে ও মেট্রোরেল কর্তৃপক্ষ একটি নতুন পরিকল্পনায় সম্মত হয়। সেই পরিকল্পনা অনুযায়ী, এমআরটি-৬’র জন্য রুম তৈরি করতে কমলাপুর স্টেশন প্লাজাকে নিকটস্থ একটি জায়গায় স্থানান্তর করা হবে এবং স্টেশনটিকে এমএমটিএইচে রূপান্তর করা হবে।

ওই বৈঠকের পর রেলমন্ত্রী নুরুল ইসলাম সুজন সাংবাদিকদের বলেছিলেন, বর্তমান প্লাজাটি ভেঙে ফেলা হবে এবং একইরকম আরেকটি প্লাজা নির্মাণ করা হবে। প্রধানমন্ত্রী এ বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত দেবেন বলেও তিনি জানান।

বর্তমান কাঠামো ঠিক রেখে মাল্টিমোডাল হাব ও মেট্রোরেলের নির্মাণকাজ এগিয়ে নিতে ঐতিহ্যবাহী কমলাপুর স্টেশনটি ভেঙে আরও উত্তরে নতুন করে নির্মাণে সম্মতি দিয়েছে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়।

এমআরটি-৬’র অতিরিক্ত প্রকল্প পরিচালক (সিভিল) আবদুল বাকী মিয়া বলেন, কমলাপুর স্টেশন চত্বরের বাইরে একটি এমআরটি স্টেশন ও একটি সিজর ক্রসিং নির্মাণ করা হবে। এমআরটি অবকাঠামো ও স্টেশন ভবনটি ৩০ মিটার দূরত্বে হবে।

‘এমআরটি-৬ সম্প্রসারণের জন্য স্টেশন ভবনটি অন্যত্র স্থানান্তর করতে হবে, এটি সত্য নয়। স্থানান্তরের সিদ্ধান্তটি বাংলাদেশ রেলওয়ের’, যোগ করেন তিনি।

Stay updated on the go with The Daily Star Android & iOS News App. Click here to download it for your device.

Grameenphone and Robi:
Type START <space> BR and send SMS it to 2222

Banglalink:
Type START <space> BR and send SMS it to 2225

পাঠকের মন্তব্য

Top