পুনর্নির্বাচনের দাবিতে অনশন, অচেতন হয়ে হাসপাতালে ১ ছাত্র | The Daily Star Bangla
০৮:২৩ অপরাহ্ন, মার্চ ১৩, ২০১৯ / সর্বশেষ সংশোধিত: ০৮:২৬ অপরাহ্ন, মার্চ ১৩, ২০১৯

পুনর্নির্বাচনের দাবিতে অনশন, অচেতন হয়ে হাসপাতালে ১ ছাত্র

স্টার অনলাইন রিপোর্ট

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদ (ডাকসু) পুনর্নির্বাচনের দাবিতে আমরণ অনশনে বসা ছয় শিক্ষার্থীর মধ্যে এক জন অচেতন হয়ে পড়ার পর তাকে হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

অনশনকারীদের সঙ্গে থাকা ঢাবি শাখা ছাত্র ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক রাজীব দাশ বলেন, দর্শন বিভাগের ছাত্র অনিন্দ্য মণ্ডল বিকেল ৫টা ১০ মিনিটের দিকে অচেতন হয়ে পড়লে তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়।

অনিন্দ্য জগন্নাথ হল সংসদ নির্বাচনে সদস্য পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছেন।

খবরের সত্যতা নিশ্চিত করে ঢাকা মেডিকেলের পুলিশ ফাঁড়ির পরিদর্শক বাচ্চু মিয়া দ্য ডেইলি স্টারকে বলেন, হাসপাতালের ৬০২ নম্বর ওয়ার্ডে রাজীবকে রাখা হয়েছে। ডাক্তাররা তাকে স্যালাইন দিয়েছেন।

অনিন্দ্য গতকাল দ্য ডেইলি স্টার অনলাইনকে বলেছিলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের কলঙ্ক মুছে দিতেই আমাদের অনশনে বসা। বিশ্ববিদ্যালয়ের সব শিক্ষার্থীদেরই আমাদের সঙ্গে বসে যাওয়া উচিত।

নির্বাচনে ভোট কারচুপির অভিযোগ তুলে নির্বাচনে অংশ নেওয়া চার জন প্রার্থী গতকাল মঙ্গলবার বিকেলে বিশ্ববিদ্যালয়ের রাজু ভাস্কর্যের সামনে আমরণ অনশনে বসেন। পরে আরও দুজন শিক্ষার্থী তাদের সঙ্গে যোগ দেন। আজ সারাদিন তীব্র রোদের মধ্যেই অনশন চালিয়ে যান তারা।

Hunger Strike
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদ (ডাকসু) ও হল সংসদে পুনঃতফসিল ঘোষণার মাধ্যমে পুনর্নির্বাচনের দাবিতে বিশ্ববিদ্যালয়ের সন্ত্রাসবিরোধী রাজু ভাস্কর্যের পাদদেশে পোস্টার। ছবি: পলাশ খান

ডাকসু নির্বাচনকে অস্বচ্ছ ও কর্তৃপক্ষের মনগড়া উল্লেখ করে অনশনে বসা প্রার্থীদের মধ্যে আরও রয়েছেন, কম্পিউটার বিজ্ঞান ও প্রকৌশল বিভাগের চতুর্থ বর্ষের শিক্ষার্থী তাওহীদ তানজিম, পপুলেশন সায়েন্সে বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী মো. মাঈনউদ্দিন, পদার্থবিজ্ঞান বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী শোয়েব মাহমুদ।

Stay updated on the go with The Daily Star Android & iOS News App. Click here to download it for your device.

Grameenphone and Robi:
Type START <space> BR and send SMS it to 2222

Banglalink:
Type START <space> BR and send SMS it to 2225

পাঠকের মন্তব্য

Top