এমসি কলেজে ধর্ষণের ঘটনায় দায় এড়াতে পারেন না অধ্যক্ষ: তদন্ত কমিটি | The Daily Star Bangla
০৯:৩৬ অপরাহ্ন, জানুয়ারি ২৭, ২০২১ / সর্বশেষ সংশোধিত: ০৯:৪০ অপরাহ্ন, জানুয়ারি ২৭, ২০২১

এমসি কলেজে ধর্ষণের ঘটনায় দায় এড়াতে পারেন না অধ্যক্ষ: তদন্ত কমিটি

স্টার অনলাইন রিপোর্ট

সিলেটের এমসি কলেজে সংঘবদ্ধ ধর্ষণের ঘটনায় হাইকোর্টের গঠিত তদন্ত কমিটির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, কলেজের অধ্যক্ষ অধ্যাপক মো. সালেহ আহমেদ প্রতিষ্ঠান প্রধান হিসাবে এ ঘটনার দায় এড়াতে পারেন না।

তদন্ত কমিটি কলেজের দুই হোস্টেল সুপার এবং দিনের ও রাতের পাঁচ নিরাপত্তা কর্মীর অবহেলা খুঁজে পেয়েছে বলেও প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়।

তদন্ত প্রতিবেদনের বরাত দিয়ে সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী মো. মেসবাহ উদ্দিন আজ বুধবার দ্য ডেইলি স্টারকে এ সব তথ্য জানান।

তিনি বলেন, 'ভবিষ্যতে এ ধরনের জঘন্য ঘটনা যেন না ঘটে এবং কলেজ ক্যাম্পাসে নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে তদন্ত কমিটি ১৫টি সুপারিশ দিয়েছে।'

বিচারপতি মো. মজিবুর রহমান মিয়ার নেতৃত্বে হাইকোর্ট বেঞ্চ আগামী ৪ ফেব্রুয়ারি তদন্ত প্রতিবেদন নিয়ে শুনানি করবেন বলে জানান তিনি।

মেসবাহ উদ্দিন জানান তদন্ত প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, কলেজের কয়েকজন সাবেক ও বর্তমান শিক্ষার্থী ছাত্রাবাসের সিট দখল করে রেখেছিল এবং সাবেক শিক্ষার্থী সাইফুর রহমান কলেজ বন্ধ থাকাকালে হোস্টেল সুপারের বাসভবন দখল করে রেখেছিলেন। তাদের এ সাহসের জন্যই তারা কলেজ ক্যাম্পাসে সংঘবদ্ধ ধর্ষণের মতো জঘন্য অপরাধ সংঘটিত করতে পেরেছে।

আদালত সূত্র জানায়, সিলেটের জেলা ও দায়রা জজ মো. বজলুর রহমানের নেতৃত্বে চার সদস্যের তদন্ত কমিটি গত বছরের ২০ অক্টোবর এ প্রতিবেদন জমা দেয়। হাইকোর্টের গত ২৯ সেপ্টেম্বরের নির্দেশনা অনুযায়ী তদন্ত কমিটি হাইকোর্টের রেজিস্ট্রার মো. গোলাম রাব্বানীর মাধ্যমে ১৭৬ পৃষ্ঠার প্রতিবেদন আদালতে জমা দেয়।

কমিটির অপর তিন সদস্য হলেন- সিলেটের অতিরিক্ত মহানগর দায়রা জজ মোমিনুন নেছা, চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট মো. আবুল কাশেম ও অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক শারমিন সুলতানা।

Stay updated on the go with The Daily Star Android & iOS News App. Click here to download it for your device.

Grameenphone and Robi:
Type START <space> BR and send SMS it to 2222

Banglalink:
Type START <space> BR and send SMS it to 2225

পাঠকের মন্তব্য

Top