ইতালি থেকে কি বাংলাদেশ শিক্ষা নেবে? | The Daily Star Bangla
০৬:৫৯ অপরাহ্ন, মার্চ ২৪, ২০২০ / সর্বশেষ সংশোধিত: ০৭:০৪ অপরাহ্ন, মার্চ ২৪, ২০২০

ইতালি থেকে কি বাংলাদেশ শিক্ষা নেবে?

‘করোনা ভাইরাস সর্দি জ্বরের মতো’-বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আবদুল মোমেনের এই মন্তব্যের কিছু দিন আগেই ইতালির লোমবার্ডি অঞ্চলের গভর্নর অ্যাটিলিও ফন্টানা বলেছিলেন, ‘করোনা আসলে সর্দি-কাশির (ফ্লু) চেয়ে সামান্য বেশি।’ বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মন্তব্যটা করেছিলেন বিদেশি কূটনীতিকদের সঙ্গে বৈঠকের পর সাংবাদিকদের ব্রিফিংয়ে। আর ইতালির ওই রাজনীতিক বলেছিলেন তাদের আঞ্চলিক সংসদে। মারাত্মক ছোঁয়াচে করোনাভাইরাসকে হালকাভাবে নেওয়ায় এখন ইতালিকে কতটা খেসারত দিতে হচ্ছে, তা দিনের আলোর মতো পরিষ্কার।

লোমবার্ডির গভর্নর যেদিন এই কথাটা বলেন, তার মাত্র তিন দিন আগেই ওই অঞ্চলে জরুরি অবস্থা ঘোষণা করা হয়েছিল। ‘সর্দি-কাশির চেয়ে সামান্য বেশি’ অভিহিত করার পরদিনই জরুরি অবস্থা তুলে নেওয়া হয়। মানুষ আবার আগের মতোই ব্যস্ত হয়ে পড়ে স্বাভাবিক জীবনে। ইতালির পরিস্থিতিকে ‘স্বাভাবিক’  হিসেবে নাগরিকদের ভরসা দেওয়ার জন্য মিলানের মেয়রের নেতৃত্বে কর্মসূচিও ঘোষণা করা হয়।

সেই লোমবার্ডি এখন মৃতপুরী, চার্চে চার্চে মৃত দেহের স্তুপ, সৎকারের ব্যবস্থা পর্যন্ত করা যাচ্ছে না। অবস্থা নাগালের বাইরে চলে যাওয়ায় সেনা পাঠিয়ে লম্বার্ডিকে লকডাউন করা হয়েছে। সেখানে পার্ক বন্ধ, রাস্তায় মানুষের চলাচল নিষিদ্ধ—এমনকি একা কেউ হাঁটতেও বের হতে পারবে না বলে এখন হুঁশিয়ারি দেওয়া হচ্ছে।

সারা বিশ্বের গণমাধ্যমে ইতালি এখন অন্যতম আলোচনার বিষয়। মৃতের সংখ্যার হিসাবেই কেবল নয়, করোনা ভাইরাসের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে থাকা দেশগুলোর জন্য ইতালি এখন হয়ে উঠেছে ‘শিক্ষা নেওয়ার’ দেশ। চীনের চেয়েও বেশি মানুষ কেন ইতালিতে মারা যাচ্ছে সেই প্রশ্ন এখন সারা বিশ্বের।

অথচ ইতালীয়রা বলছে, ২৯ জানুয়ারি দুজন চীনা পর্যটকের করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ধরা পড়ার পরের দিনই জরুরি অবস্থা ঘোষণা করা হয়। চীনের সঙ্গে বিমান যোগযোগও বন্ধ করা হয়। অর্থনীতিতে প্রবল চাপে থাকা ইতালি আর কিই বা করতে পারত- এমন প্রশ্ন ইতালির সরকারের পক্ষ থেকেও তোলা হচ্ছে। কিন্তু বিদেশি গণমাধ্যম ইতালির এই দাবিকে আমলে নিচ্ছে না। নিউইয়র্ক টাইমস তাদের প্রতিবেদনে দাবি করেছে—ইতালি শুরু থেকেই খামখেয়ালি করেছে, যার কারণে এত লাশ গুনতে হচ্ছে তাদের।

নিউইয়র্ক টাইমস ‘ইতালি: এ কশনারি টেল ফর ওয়ার্ল্ড’ শিরোনামে একটি প্রতিবেদনও প্রকাশ করেছে। সেই প্রতিবেদনটি শুরুই হয়েছে এভাবে–‘ইতালিতে যখন করোনা ভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা ৪০০ ছাড়িয়েছে আর মৃতের সংখ্যা দুই ডিজিটে, তখন দেশটির ডেমোক্রেটিক পার্টির নেতা পানীয়ের গ্লাস হাতে নিজের একটি ছবি পোস্ট করে তাতে লিখেছিলেন ইতালীয়দের অভ্যাসের পরিবর্তনের কোনো প্রয়োজন নেই। মাত্র ১০ দিনের মাথায় ২৭ ফেব্রুয়ারি ডেমোক্র্যাট পার্টিও প্রধান নিকোলা জিঙারেটি নতুন ভিডিও পোস্ট করলেন বলেন যে, তিনি নিজেও করোনা আক্রান্ত।

পত্রিকার তথ্যানুসারে, বিপজ্জনক এই ভাইরাসটি একই সঙ্গে ইউরোপের অন্যান্য দেশেও প্রবেশ করেছিল। জার্মানিও আক্রান্ত হয়েছে একই সময়ে। ইতালি আর জার্মানির চিকিৎসা ব্যবস্থা এমনকি চিকিৎসা সামগ্রী প্রায় একই রকম। তবু জার্মানির পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে থাকলেও ইতালির পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে থাকেনি। নিউইয়র্ক টাইমস বলছে, সময়মতো বিপদটির ভয়াবহতা অনুধাবন করতে না পারা এবং মানুষকে হুঁশিয়ার করতে ব্যর্থ হওয়ায় ইতালিকে আজ এই প্রায়শ্চিত্ত করতে হচ্ছে। সময়ের সিদ্ধান্ত সময়ে নিতে না পেরে ক্রমান্বয়ে ছোট শহর থেকে বড় শহর ও পরে সমস্ত দেশ লকডাউন করা হল, ততক্ষণে ক্ষতির পরিমাণ কল্পনাকেও ছাড়িয়ে গেছে।

নিউইয়র্ক টাইমসের মত হচ্ছে, শুধু সরকার প্রধানই নন, অন্যান্য মন্ত্রী এবং কর্মকর্তরাও খুবই নিশ্চিন্তে ছিলেন যে তাদের কিছুই হবে না বা এই বিপদ বেশিদিন থাকবে না। এখন সে দায় পরিশোধ করতে হচ্ছে তাদের।

২৯ জানুয়ারি প্রথম দুই চীনা পর্যটকের দেহে করোনার উপস্থিতিকে ইতালিতের করোনার প্রথম ঘটনা হিসেবে দেখা হলেও স্থানীয় গবেষকরা বলছেন, সম্ভবত তার আগ থেকেই নীরবে ইতালিতে এই ভাইরাসটি ছড়িয়ে পড়েছিল, যেটি কেউ বুঝে উঠতে পারেনি। বিভিন্ন খবরে বলা হচ্ছে ইতালির কোনো কোনো এলাকায় নিউমোনিয়ার প্রকোপ বেড়ে যাওয়ার খবর স্থানীয় পত্রিকায় খবর বেরিয়েছিল। তখনো একে করোনাভাইরাসের সন্দেহের মধ্যে ফেলা হয়নি। ফলে এদের কারোরই পরীক্ষা করা হয়নি। যখন পরীক্ষা শুরু হয়েছে তখনো অনেকের সর্দি-কাশি থাকলেও আর কোনো লক্ষণ প্রকাশ পায়নি। কিন্তু যখন প্রকাশ পেতে শুরু করল ততক্ষণে সবকিছু নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে গেছে। নানা গবেষণায় ধারণা দেওয়া হচ্ছে, মধ্য জানুয়ারি থেকেই নীরবে ইতালিতে করোনা ভাইরাস ছড়িয়েছে। কিন্তু কেউ সেদিকে নজর দেয়নি। চীনের পর্যটকের মাধ্যমেই প্রথম সরকারের মনোযোগ যায় করোনাভাইরাসের দিকে। এখন অবশ্য বলা হচ্ছে, তার অনেক আগেই জার্মানি থেকে ভাইরাসটি ঢুকে গেছে ইতালিতে।

করোনাভাইরাস প্রতিরোধ প্রচেষ্টায় বাংলাদেশসহ বিশ্বের সব দেশের জন্যই ইতালি শিক্ষণীয় দৃষ্টান্ত হয়ে দাঁড়িয়েছে।

সেরীন ফেরদৌস: প্রবাসী লেখক

(দ্য ডেইলি স্টারের সম্পাদকীয় নীতিমালার সঙ্গে লেখকের মতামতের মিল নাও থাকতে পারে। প্রকাশিত লেখাটির আইনগত, মতামত বা বিশ্লেষণের দায়ভার সম্পূর্ণরূপে লেখকের, দ্য ডেইলি স্টার কর্তৃপক্ষের নয়। লেখকের নিজস্ব মতামতের কোনো প্রকার দায়ভার দ্য ডেইলি স্টার নিবে না।)

Stay updated on the go with The Daily Star Android & iOS News App. Click here to download it for your device.

Grameenphone and Robi:
Type START <space> BR and send SMS it to 2222

Banglalink:
Type START <space> BR and send SMS it to 2225

পাঠকের মন্তব্য

Top