লাইভ আপডেট: আফিফের ব্যাটে বাংলাদেশের জয় | The Daily Star Bangla
০৫:৫৭ অপরাহ্ন, সেপ্টেম্বর ১৩, ২০১৯ / সর্বশেষ সংশোধিত: ১১:৩৮ অপরাহ্ন, সেপ্টেম্বর ১৩, ২০১৯

লাইভ আপডেট: আফিফের ব্যাটে বাংলাদেশের জয়

রামিন তালুকদার

লক্ষ্যটা খুব বড় ছিল না। ১৪৫ রানের। কিন্তু তাই করতে হুড়মুড় করে যেভাবে উইকেট পড়ছিল তাতে জয় মনে হচ্ছিল দূরের বাতিঘর। ৬০ রানেই হারিয়ে ফেলে ৬ উইকেট। কিন্তু তখনই দলের ত্রাতা হয়ে নামেন আফিফ হোসেন ধ্রুব। সঙ্গী হিসেবে পান মোসাদ্দেক হোসেন সৈকতকে। এ দুই ব্যাটসম্যানের দারুণ জুটিতে ৩ উইকেটের জয় পেয়েছে বাংলাদেশ।

সপ্তম উইকেটে যোগ করেন ৮২ রান আফিফ ও মোসাদ্দেক। তাতেই জয়ের ভিত পেয়ে যায় দলটি। তবে জয় থেকে ৩ রান দূরে থাকতে আউট হয়ে যান আফিফ। কিন্তু তাতে খুব একটা সমস্যা হয়নি। বাকী কাজ এসে শেষ করেন আরেক তরুণ সাইফ উদ্দিন। ফলে ২ বল বাকী থাকতেই জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে টাইগার বাহিনী।

সংক্ষিপ্ত স্কোর:

জিম্বাবুয়ে: ১৮ ওভারে ১৪৪/৫ (টেইলর ৬, মাসাকাদজা ৩৪, আরভিন ১১, উইলিয়ামস ২, মারুমা ১, বার্ল ৫৭*, মুটোম্বোডজি ২৭*; সাকিব ০/৪৯, তাইজুল ১/২৬, সাইফুদ্দিন ১/২৬, মোস্তাফিজ ১/৩১, মোসাদ্দেক ১/১০)। 

বাংলাদেশ: ১৭.৪ ওভারে ১৪৮/৭ (লিটন ১৯, সৌম্য ৪, সাকিব ১, মুশফিক ০, মাহমুদউল্লাহ ১৪, সাব্বির ১৫, মোসাদ্দেক ৩০*, আফিফ ৫২, সাইফ ৬*; উইলিয়ামস ০/৩১, জার্ভিস ২/৩১, চাতারা ২/৩২, বার্ল ১/২৭, মাডজিভা ২/২৫)।

ফলাফল: বাংলাদেশ ৩ উইকেটে জয়ী।

ম্যান অব দ্য ম্যাচ: আফিফ হোসেন ধ্রুব (বাংলাদেশ)।

জয়ের ভিত গড়ে ফিরলেন আফিফ

দলের বিপদে দারুণ ব্যাটিং করেছেন আফিফ হোসেন ধ্রুব। ইনিংস মেরামত করে নিজেও করেছেন ক্যারিয়ারের প্রথম হাফসেঞ্চুরি। তবে এরপর খুব বেশিক্ষণ টিকতে পারেননি। নেভিল মাডজিভার বলে শর্ট মিডঅফে আউট হয়েছেন অধিনায়ক হ্যামিল্টন মাসাকাদজার দারুণ ক্যাচের বলী হয়ে। তবে এর আগেই কাজের কাজটি করে গেছেন। ২৬ বলে ৮টি চার ও ১টি ছক্কায় ৫২ রান করেন তিনি।  

আফিফের ফিফটি

অভিষেক ম্যাচে প্রথম বলেই আউট হয়ে গিয়েছিলেন আফিফ হোসেন ধ্রুব। এরপর লম্বা সময়ে আর জাতীয় দলের জার্সিতে খেলার সুযোগ মিলছিল না তার। ফের সুযোগ পেয়েই নিজের জাত চেনালেন এ তরুণ। তুলে নিলেন ক্যারিয়ারের প্রথম হাফসেঞ্চুরি। তাও দলের খুব প্রয়োজনীয় সময়ে। যখন মাত্র ৬০ রানেই হারিয়েছিল সেরা ৬ ব্যাটসম্যান। মাত্র ২৪ বলে ৮টি চার ও ১টি ছক্কার সাহায্যে এ রান করেন এ ব্যাটসম্যান।

১৭ ওভার শেষে বাংলাদেশের সংগ্রহ ৬ উইকেটে ১৪০ রান। আফিফ ৫০ ও মোসাদ্দেক ৩০ রানে ব্যাট করছেন। জিততে হলে ৬ বলে ৫ রান নিতে হবে টাইগারদের।  

আফিফ-মোসাদ্দেক জুটিতে পঞ্চাশ

দারুণ ব্যাটিং করছেন বাংলাদশের দুই তরুণ ব্যাটসম্যান আফিফ হোসেন ধ্রুব ও মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত। দলের হাল ধরেছেন। সঙ্গে রাতের গতিও রেখেছেন সচল। এ দুই ব্যাটসম্যানের ঝড়ো ব্যাটিংয়ে ৬০ রানে ৬ উইকেট হারানো দলটি স্বপ্ন দেখছে। এরমধ্যে নিজেদের জুটিও পার করেছে পঞ্চাশ রানের কোটা। মাত্র ৩০ বলে এসেছে জুটির ফিফটি। তাতে অবশ্য আফিফের অবদানই বেশি। ২৯ রান করেছেন তিনি। মোসাদ্দেকের অবদান ২০ রান।

১৫ ওভার শেষে বাংলাদেশের সংগ্রহ ৬ উইকেটে ১১৭ রান। আফিফ ৩৩ ও মোসাদ্দেক ২৪ রানে ব্যাট করছেন। জিততে হলে শেষ তিন ওভারে করতে হবে আরও ২৮ রান।  

দলীয় একশো 

৬০ রানে ৬ উইকেট হারিয়ে ডুবতে থাকা বাংলাদেশকে টেনে তুলছেন মোসাদ্দেক হোসেন ও আফিফ হোসেন। তাদের ঝড়ো ব্যাটিংয়ে ম্যাচে ফিরেছে বাংলাদেশ। এরমধ্যে দলীয় শতকও পার করেছেন তারা। ১২.১ ওভারে (৭৫ বল) হয়েছে দলীয় একশো রান। 

১৩ ওভারে বাংলাদশের সংগ্রহ ৬ উইকেটে ১০৬ রান। মোসাদ্দেক ১৯ ও আফিফ ২৭ রানে ব্যাট করছেন।

বার্লের দারুণ ক্যাচে আউট সাব্বির

দলকে বড় বিপদে ফেলে আউট হয়ে গেলেন সাব্বির রহমান। নেভিল মাডজিভার অফ স্টাম্পের বেশ বাইরের বল স্লগ সুইপ করতে গিয়েছিলেন তিনি। তবে মিড উইকেট সীমানায় রায়ান বার্লের দারুণ ক্যাচে পরিণত হয়েছেন এ ব্যাটসম্যান। ফলে বাংলাদেশের বিপদ আরও বেড়েছে। ১৫ বলে ১টি চারের সাহায্যে ১৫ রান করেছেন সাব্বির।

১০ ওভার শেষে ৬ উইকেটে ৬৫ রান করেছে বাংলাদেশ। ৩ রানে ব্যাট করছেন মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত। নতুন ব্যাটসম্যান আফিফ হোসেন ব্যাট করছেন ৪ রানে।

মাহমুদউল্লাহর বিদায়ে বিপদে বাংলাদেশ

মাত্র ১০ বলের ব্যবধানে ৪টি উইকেট হারায় বাংলাদেশ। তাতে বড় বিপদে পড়েছিল বাংলাদেশ। দল তাকিয়েছিল অভিজ্ঞ মাহমুদউল্লাহ দিকে। কিন্তু হতাশ করেছেন তিনি। রায়ান বার্লের বলে এলবিডাব্লিউর ফাঁদে পড়েছেন তিনি। রিভিউ নিয়েছিলেন। কিন্তু আম্পায়ার্স কলে টিকে যায় সে সিদ্ধান্ত। ফলে বড় বিপদে পড়েছে বাংলাদেশ। ১৬ বলে ২টি চারের সাহায্যে ১৪ রান করেছেন মাহমুদউল্লাহ।

৯ ওভার শেষে বাংলাদেহসের সংগ্রহ ৫ উইকেটে ৫৮ রান। সাব্বির রহমান ১৪ রানে ব্যাট করছেন। নতুন ব্যাটসম্যান হিসেবে মাঠে নেমেছেন মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত।

জীবন পেলেন সাব্বির

রায়ান বার্লের শর্ট বলটি পুল করতে গিয়েছিলেন সাব্বির রহমান। কিন্তু ঠিকভাবে লাগাতে না পারায় ডিপ মিড উইকেটে ক্যাচ তুলে দিয়েছিলেন তিনি। কিন্তু সে ক্যাচ ধরতে পারেননি টনি মুনিওঙ্গা। ফলে জীবন পান সাব্বির। অ্যা সময়ে ১১ রানে ব্যাট করছিলেন তিনি। আর এ দুই রানে দলীয় হাফসেঞ্চুরি পার হয়েছে বাংলাদেশের। ৭ ওভারে (৪৪ বল) এলো দলের ফিফটি। এর আগের ওভারে ফিরে যেতে পারতেন আরেক অপরাজিত ব্যাটসম্যান মাহমুদউল্লাহও। জার্ভিসের বলে আকাশে তুলে দিয়েছিলেন। কিন্তু বল নো ম্যান্স ল্যান্ডে পড়লে বেঁচে যান তিনি।

৭ ওভার শেষে বাংলাদেশের সংগ্রহ ৪ উইকেটে ৫০ রান। মাহমুদউল্লাহ ৯ ও সাব্বির ১৩ রানে ব্যাট করছেন।  

বিপদ বাড়িয়ে ফিরলেন সাকিবও

পাঁচ বলের ব্যবধানে তিন উইকেট হারিয়ে বড় চাপে পড়েছিল বাংলাদেশ। এ সময় দল তাকিয়ে ছিল অধিনায়ক সাকিব আল হাসানের দিকে। কিন্তু হতাশ করেছেন তিনি। টেন্ডাই চাতারার বলে জায়গায় দাঁড়িয়ে খেলতে গিয়ে স্লিপে ধরা পড়েছেন হ্যামিল্টন মাসাকাদজার হাতে। ৩ বলে ১ রান করেছেন সাকিব।

৫ ওভার শেষে বাংলাদেশের সংগ্রহ ৪ উইকেটে ৩৪ রান। ৬ রানে ব্যাট করছেন মাহমুদউল্লাহ। নতুন ব্যাটসম্যান সাব্বির রহমান আছেন ১ রানে।

মুশফিকের বিদায়ে চাপে বাংলাদেশ

জাদুকরী এক ডেলিভারিতে বাংলাদেশের অন্যতম সেরা ব্যাটসম্যান মুশফিকুর রহিমকে বিদায় করলেন কাইল জার্ভিস। শর্ট বল করেছিলেন। তবে যতটা বাউন্সা পাওয়ার কথা তার চেয়ে বেশি বাউন্স পেলেন। বাড়তি বাউন্সেই কুপোকাত হন মুশফিক। ব্যাটের কানায় লেগে চলে উইকেটরক্ষকের হাতে। খালি ফিরলেন মুশফিক। তিন বল আগেই জার্ভিস ফিরিয়েছিলেন সৌম্য সরকারকে।

টিকলেন না সৌম্যও

আগের বলেই আউট হিয়ে গেছেন লিটন দাস। পরের বলে ফিরলেন আরেক ওপেনার সৌম্য সরকারও। কাইল জার্ভিসের বলে জায়গায় দাঁড়িয়ে বাউন্ডারি তুলে নিতে চেয়েছিলেন। কিন্তু বলের পেস বুঝতে পারেননি। কিছুটা আগে ব্যাট চালিয়ে আকাশে তুলে দেন বল। মিডঅফে সহজ ক্যাচ তুলে নিয়েছেন নেভিল মাডিজিভা। 

লিটনকে ফেরালেন চাতারা

দারুণ একটি ইয়র্কার দিয়েছিলেন টেন্ডাই চাতারা। কিন্তু কি করতে গেলেন লিটন দাস? পেছনে সরে গিয়ে জায়গা করে কাট করতে চেয়েছিলেন তিনি। কিন্তু লেংথ মিস করে বোল্ড হয়ে গেলেন এ ওপেনার। বাংলাদেশ হারায় প্রথম উইকেট। ১৪ বলে ১টি করে চার ও ছক্কায় ১৯ রান করেছেন লিটন।

৩ ওভার শেষে বাংলাদেশের সংগ্রহ ১ উইকেটে ২৬ রান। ৪ রানে ব্যাট করছেন সৌম্য সরকার। নতুন ব্যাটসম্যান হিসেবে মাঠে নেমেছেন অধিনায়ক সাকিব আল হাসান।

জিম্বাবুয়ের লড়াইয়ের পুঁজি

শেষ দিকে রায়ান বার্লের ঝড়ো ব্যাটিংয়ে লড়াইয়ের পুঁজি পেয়েছে জিম্বাবুয়ে। ৫টি চার ও ৪টি ছক্কায় মাত্র ৩২ বলে ৫৭ রান করেছেন বার্ল। মুটোম্বোডজি কিছুটা দেখে খেলেছেন। ২৬ বলে করেছেন ২৭ রান। তাতে নির্ধারিত ১৮ ওভারে ৫ উইকেটে ১৪৪ রানের সংগ্রহ পেয়েছে স্বাগতিক দলটি। অথচ ৬৩ রানেই ৫ উইকেট পরে গিয়েছিল দলটির। ষষ্ঠ উইকেটে মুটোম্বোডজির সঙ্গে অবিচ্ছিন্ন ৭১ রানের জুটি গড়েছেন বার্ল।

সংক্ষিপ্ত স্কোর: 

জিম্বাবুয়ে: ১৮ ওভারে ১৪৪/৫ (টেইলর ৬, মাসাকাদজা ৩৪, আরভিন ১১, উইলিয়ামস ২, মারুমা ১, বার্ল ৫৭*, মুটোম্বোডজি ২৭*; সাকিব ০/৪৯, তাইজুল ১/২৬, সাইফুদ্দিন ১/২৬, মোস্তাফিজ ১/৩১, মোসাদ্দেক ১/১০)।  


স্টেডিয়ামে হঠাৎ বিদ্যুৎ বিভ্রাট

আগের ওভারেই সাকিব আল হাসানকে বেদম পিটুনি দিয়েছেন রায়ান বার্ল। পরের ওভারেও এমন কিছুরই ইঙ্গিত। সাইফউদ্দিনকে দারুণ এক ছক্কা হাঁকালেন মুটোম্বোডজি। কিন্তু এরপরই সোয়া ৯টার দিকে মাঠে হঠাৎ বিদ্যুৎ চলে যায়। বিদ্যুৎ এলে ৭ মিনিট পর ফের জ্বলে ফ্ল্যাড লাইট। প্রায় ১০ পর শুরু হয় খেলা।

জিম্বাবুয়ের দলীয় শতরান

দলীয় ৬৩ রানে পাঁচ উইকেট হারিয়ে বেশ চাপে পড়েছিল জিম্বাবুয়ে দল। তবে ষষ্ঠ উইকেটে নোটেন্ডা মুটোম্বোডজিকে নিয়ে দারুণ এক জুটি গড়েছেন রায়ান বার্ল। মোস্তাফিজুর রহমানের করা ১৫তম ওভারে এক ছক্কা ও একটি চার মেরে ১৩ নেন বার্ল। তবে পরের ওভারে বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসানকে তো পিটিয়েছেন গলির বোলারের মতো। ছয়টি বলেই হাঁকিয়েছেন বাউন্ডারি। যার মধ্যে তিনটি ছক্কা ও তিনটি চার। ক্যারিয়ারে এমন পিটুনি আর কখনোই খাননি সাকিব।

তাতে দলীয় শতকও পার করেন বার্ল। ১৫.১ ওভারে (৯১ বল) আসে দলের শতরান। এসেছে জুটির ফিফটিও। ৩৭ বলে আসে ষষ্ঠ উইকেটে করা জুটির হাফসেঞ্চুরি। তুলে নিয়েছেন নিজের হাফসেঞ্চুরিও। মাত্র ২৮ বলে ৫টি চার ও ৪টি ছক্কায় এ রান করেন তিনি।

১৬ ওভার শেষে জিম্বাবুয়ের সংগ্রহ ৫ উইকেটে ১২৫ রান। বার্ল ৫৪ ও মুটোম্বোডজি ১১ রানে ব্যাট করছেন।   


রানআউট মারুমা

মোস্তাফিজুর রহমানের বলটি শর্ট মিড উইকেটে ঠেলে দিয়েছিলেন রায়ান বার্ল। তাতে রান নিতে চেয়েছিলেন টিমিসেন মারুমা। প্রথমে সাড়া দিয়ে তাৎক্ষনিকভাবেই না করেন বার্ল। কিন্তু ততক্ষণে দেরি হয়ে। উইকেটে মাঝ পথে চলে আসেন এ তরুণ। সাকিবের দারুণ থ্রো ধরে উইকেট ভাঙতে এক মুহূর্ত দেরি করেননি মোস্তাফিজ। রানআউট হয়ে যান মারুমা। ২ বলে ১ রান আসে তার ব্যাট থেকে। ফলে বড় চাপে পড়েছে জিম্বাবুয়ে।

১০ ওভার শেষে ৫ উইকেটে ৬৪ রান করেছে জিম্বাবুয়ে। ৬ রানে ব্যাট করছেন বার্ল। নতুন ব্যাটসম্যান হিসেবে মাঠে নেমেছেন টিনোটেন্ডা মুটোম্বোডজি।  

মোসাদ্দেকের প্রথম বলে আউট উইলিয়ামস

বল হাতে নিয়ে প্রথম বলেই সাফল্য পেলেন অলরাউন্ডার মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত। ফিরিয়েছেন জিম্বাবুয়ের অন্যতম অভিজ্ঞ ব্যাটসম্যান শেন উইলিয়ামসকে। তার বলে পেছনের পায়ে ভর করে ড্রাইভ করতে গিয়ে ঠিকভাবে ব্যাটে বলে করতে পারেননি এ ব্যাটসম্যান। সহজ ক্যাচ তুলে দেন বোলার মোসাদ্দকের হাতে। ৩ বলে ২ রান করেছেন উইলিয়ামস।

৯ ওভার শেষে জিম্বাবুয়ের সংগ্রহ ৪ উইকেটে ৫৯ রান। ১ রানে ব্যাট করছেন টিমিসেন মারুমা। নতুন ব্যাটসম্যান হিসেবে মাঠে নেমেছেন রায়ান বার্ল।

বিপজ্জনক মাসাকাদজাকে ফেরালেন সাইফ

ক্রমেই ভয়ঙ্কর হয়ে উঠছিলেন জিম্বাবুয়ে অধিনায়ক হ্যামিল্টন মাসাকাদজা। উইকেটে সেট হয়ে গিয়েছিলেন। হাত খুলেও খেলছিলেন। তবে বড় ক্ষতি করার আগে তাকে ফিরিয়েছেন অলরাউন্ডার সাইফ উদ্দিন। তার বল জায়গায় দাঁড়িয়ে ড্রাইভ করে লংঅফে ধরা পড়েছেন সাব্বির রহমানের হাতে। ২৬ বলে ৫টি চার ও ১টি ছক্কায় ৩৪ রান করেছেন মাসাকাদজা।

৮ ওভার শেষে জিম্বাবুয়ের সংগ্রহ ৩ উইকেটে ৫৬ রান। ২ রানে ব্যাট করছেন শেন উইলিয়ামস। নতুন ব্যাটসম্যান হিসেবে মাঠে নেমেছেন টিমিসেন মারুমা।

ফিরে গেলেন আরভিন

এক প্রান্তে অধিনায়ক হ্যামিল্টন মাসাকাদজা হাত খুলে খেললেও কিছুটা খোলসে বন্দী ছিলেন তিন নম্বরে ব্যাট করতে নামা ক্রেইগ আরভিন। তবে চেষ্টা করছিলেন খোলস ভাঙতে। মোস্তাফিজুর রহমানের বাউন্সারে পুল করতে গিয়েছিলেন আরভিন। ব্যাটে বলে ঠিকভাবে লাগাতে পারেননি। মিড উইকেটে মোসাদ্দেক হোসেন সৈকতের হাতে ধরা পড়েছেন তিনি। ১৪ বলে ১১ রান করেছেন আরভিন।

৭ ওভার শেষে জিম্বাবুয়ের সংগ্রহ ২ উইকেটে ৫২ রান। মাসাকাদজা ব্যাট করছেন ৩২ রানে। নতুন ব্যাটসম্যান হিসেবে মাঠে নেমেছেন শেন উইলিয়ামস।

জিম্বাবুয়ের হাফসেঞ্চুরি

প্রথম বলে উইকেট হারানোর পর সে ধাক্কা দারুণভাবেই সামলে নিয়েছে জিম্বাবুয়ে। এরমধ্যে দলগত হাফসেঞ্চুরি পূরণ করেছে দলটি। ৬.২ ওভার (৩৮ বল) এসেছে তাদের দলীয় ফিফটি।

অভিষেকে প্রথম বলেই তাইজুলের উইকেট

আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টি ম্যাচের অভিষেকে নিজের প্রথম বলেই উইকেট তুলে নিলেন বাঁহাতি স্পিনার তাইজুল ইসলাম। ফিরিয়েছেন জিম্বাবুয়ের অন্যতম অভিজ্ঞ খেলোয়াড় ব্রান্ডন টেইলরকে। তার বলে জায়গায় দাঁড়িয়ে হাঁকাতে গিয়েছিলেন টেইলর। ব্যাটের কানায় লেগে উঠে যায় আকাশে। শর্ট থার্ডম্যানে সহজেই সে ক্যাচ তালুবন্দি করেছেন মাহমুদউল্লাহ। খালি হাতে ফিরেছেন টেইলর।

২ ওভার শেষে জিম্বাবুয়ের সংগ্রহ ১ উইকেটে ৯ রান। ২ রানে ব্যাট করছেন অধিনায়ক হ্যামিল্টন মাসাকাদজা। নতুন ব্যাটসম্যান হিসেবে মাঠে নেমেছেন ক্রেইগ আরভিন।

জিম্বাবুয়ে একাদশ: রায়ান বার্ল, ব্রান্ডন টেইলর, হ্যামিল্টন মাসাকাদজা, ক্রেইগ আরভিন, শেন উইলিয়ামস, টিমিসেন মারুমা, টিনোটেন্ডা মুটোম্বোডজি, টনি মুনিওঙ্গা, নেভিল মাডজিভা, কাইল জারভিস ও টেন্ডাই চাতারা।

তাইজুলের অভিষেক, একাদশে দুই পেসার

সদ্য শেষ হওয়া চট্টগ্রাম টেস্টে আফগানিস্তানের বিপক্ষে কোন পেসার রাখেনি বাংলাদেশ। তবে টি-টোয়েন্টি সিরিজের প্রথম ম্যাচে দুই জন পেসার নিয়ে একাদশ গড়েছে টাইগাররা। মোস্তাফিজুর রহমানের সঙ্গে আছেন অলরাউন্ডার মোহাম্মদ সাইফউদ্দিন। আছেন দুইজন স্পিনারও। অভিষেক হয়েছে স্পিনার তাইজুল ইসলামের।

বাংলাদেশ একাদশ: সৌম্য সরকার, লিটন কুমার দাস, সাকিব আল হাসান, মুশফিকুর রহিম, মাহমুদউল্লাহ, মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত, সাব্বির রহমান, আফিফ হোসেন ধ্রুব, তাইজুল ইসলাম, মোহাম্মদ সাইফউদ্দিন ও মোস্তাফিজুর রহমান।

টস জিতে ফিল্ডিংয়ে বাংলাদেশ

জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে ত্রিদেশীয় সিরিজের প্রথম ম্যাচে বৃষ্টি বেশ বাগড়া দিচ্ছে। সকাল থেকে টানা বৃষ্টির কারণে মাঠ পরিচর্যা করতে বেশ সময় লেগে যায় মাঠকর্মীদের। মাঝেও বৃষ্টি বাগড়া দিয়েছে। তবে আশার কথা বৃষ্টি থাকার পর টস অনুষ্ঠিত হয়েছে। আর টস জিতে ফিল্ডিং বেছে নিয়েছেন বাংলাদেশ দলের অধিনায়ক সাকিব আল হাসান। মানে আগে ব্যাটিংয়ে নামছে জিম্বাবুয়ে। ম্যাচটি শুরু হবে বাংলাদেশ সময় রাত ৮টায়।

৮টায় ম্যাচ শুরু, খেলা হবে ১৮ ওভারে

ফের বৃষ্টি না হলে রাত ৮টায় শুরু হবে ম্যাচ। এর আগে রাত পৌনে ৮টায় হবে টস। মাঠ পরিদর্শন শেষে এমনটাই জানিয়েছেন আম্পায়াররা। আর ম্যাচের পরিধিও কমেছে। দুই ওভার কমায় ম্যাচ অনুষ্ঠিত হবে ১৮ ওভারে। কমানো হয়েছে বিরতির সময়ও। 

থেমেছে বৃষ্টি

সন্ধ্যা সোয়া ৭টার দিকে ফের বৃষ্টি আসায় শঙ্কা জেগেছিল ম্যাচ শুরু নিয়ে। তবে আশার কথা আবার থেমে গিয়েছে বৃষ্টি। খুব শীগগিরই হয়তো মাঠ পর্যবেক্ষণে নামবেন আম্পায়াররা। তবে সময় যতো পার হয়েছে তাতে ম্যাচের পরিধি কমছে তা প্রায় নিশ্চিত।

ফের বৃষ্টি

বিকাল সাড়ে ৫টার দিকে পুরোপুরি থেমে গিয়েছিল বৃষ্টি। মাঠকর্মীরা মাঠকে খেলার উপযোগীও করে ফেলেছিলেন প্রায়। সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায় দ্বিতীয় দফায় মাঠ পর্যবেক্ষণ শেষে খেলা শুরুর সময় জানানোর কথা ছিল। কিন্তু আম্পায়ার ও কিউরেটররা যখন মাঠে ঢুকেছেন তার কিছুক্ষণের মধ্যে ফের শুরু হয় বৃষ্টি। যদিও ঝিরিঝিরি। তবে তাতে ম্যাচ শুরু নিয়ে তৈরি হয়েছে শঙ্কা।

ফের সন্ধ্যা ৭টায় মাঠ মাঠ পরিদর্শন করবেন আম্পায়াররা

সন্ধ্যা সোয়া ৬টায় পর্যবেক্ষণ করতে মাঠে ঢুকেছিলেন দুই আম্পায়ার। মাঠের প্রস্তুতি নিয়ে সন্তুষ্ট নন তারা। তাই ফের সন্ধ্যা ৭টায় মাঠ পর্যবেক্ষণ করবেন।  


ভেজা মাঠে টস হতে দেরি

সকাল থেকেই ঢাকার আকাশে ছিল মেঘলা। বৃষ্টিও হয়েছে দফায় দফায়। গুঁড়িগুঁড়ি বৃষ্টি ছিল প্রায় সারাদিনই। তবে ঘণ্টা খানেক আগে পুরো থেমে গেলেও বাংলাদেশ ও জিম্বাবুয়ের মধ্যকার ত্রিদেশীয় সিরিজের টস সময়মত হচ্ছে না। ৬টায় টস হওয়ার কথা থাকলেও মাঠ প্রস্তুত কিনা তা খতিয়ে দেখতে ৬টা ১৫ মিনিট পর্যন্ত সময় নিয়েছেন আম্পায়াররা।

সাদা বলের খেলা বলেই আশাবাদী বাংলাদেশ 

ত্রিদেশীয় এ টুর্নামেন্টে শিরোপা ছাড়া বিকল্প কিছুই ভাবছে না টাইগাররা। কিন্তু তিন দলের এ আসরে খেলবে আফগানিস্তানও। যাদের কাছে সদ্যই ঘরের মাঠে একমাত্র টেস্ট ম্যাচে নাস্তানুবাদ হয়েছে তারা। সে স্মৃতি একেবারেই তরতাজা। সপ্তাহ না ঘুরতে তাদের বিপক্ষে আবার মাঠে নামতে হবে তাদের। কিন্তু সাদা বলের খেলা বলেই বেশ আত্মবিশ্বাসী দলের কোচ রাসেল ডমিঙ্গো, 'যখন সাদা বলের খেলা আসে, বাংলাদেশ তাদের দিনে যে কোন দলকে হারাতে পারে। আমাদের দলে কিছু বিশ্বমানের পারফর্মার রয়েছে। দলের খেলোয়াড়দের অভিজ্ঞতার দিকে তাকান। ৫০ ওভারের ম্যাচের বিশ্বকাপে, বাংলাদেশ দ্বিতীয় অভিজ্ঞ দল ছিল। এ দলে দক্ষতার কোন ঘাটতি নেই।'

টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ সামনে রেখে শুরু বাংলাদেশের

আগামী বছর অস্ট্রেলিয়ায় অনুষ্ঠিত হতে যাওয়া টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ সামনে রেখে নতুন মৌসুম শুরু করছে বাংলাদেশ। কদিন আগে আফগানিস্তানের বিপক্ষে টেস্ট হারের পর খারাপ সময়ে থাকা সাকিব আল হাসানের দল নামছে ত্রিদেশীয় টি-টোয়েন্টি সিরিজে। প্রতিপক্ষ জিম্বাবুয়ে হলেও নিজেদের খারাপ সময় বিবেচনায় বাড়তি সতর্ক বাংলাদেশ।

Stay updated on the go with The Daily Star Android & iOS News App. Click here to download it for your device.

Grameenphone and Robi:
Type START <space> BR and send SMS it to 2222

Banglalink:
Type START <space> BR and send SMS it to 2225

পাঠকের মন্তব্য

Top