লাইভ আপডেট: শ্রীলঙ্কার কাছে পাত্তাই পেল না বাংলাদেশ | The Daily Star Bangla
০২:৩০ অপরাহ্ন, জুলাই ২৬, ২০১৯ / সর্বশেষ সংশোধিত: ১১:৪০ অপরাহ্ন, জুলাই ২৬, ২০১৯

লাইভ আপডেট: শ্রীলঙ্কার কাছে পাত্তাই পেল না বাংলাদেশ

রামিন তালুকদার

লক্ষ্যটা ছিল বিশাল। সে লক্ষ্য তাড়ায় শুরুতেই বড় বিপর্যয়ে বাংলাদেশ। দুই ওপেনার ফিরেছেন লাসিথ মালিঙ্গার ইয়র্কারে বোল্ড হয়ে। এরপর মিঠুন ও মাহমুদউল্লাহর বিদায়ে ৩৯ রানেই শেষ ৪ উইকেট। সেখান থেকে মুশফিকুর রহিম ও সাব্বির রহমান দলকে টেনে তুললেন। শতরানের জুটি গড়ার পর ভুল শটে বিদায় নেন সাব্বির। এরপর আবার উইকেট হারানোর মিছিলে যোগ দেয় বাংলাদেশ। বাদ যাননি মুশফিকও। ফলে বড় হারই নিশ্চিত হয়ে যায় টাইগারদের জন্য। ৯১ রানের বিশাল হারে শ্রীলঙ্কায় সিরিজ শুরু করে তামিম ইকবালের দল।

এ ম্যাচ দিয়ে আন্তর্জাতিক ওয়ানডে ক্রিকেট থেকে বিদায় নিয়েছেন লাসিথ মালিঙ্গা। বিদায় দুর্দান্ত পারফরম্যান্স করেছেন তিনি। একের পর এক দারুণ সব ইয়র্কারে নাস্তানুবাদ করেছেন টাইগার ব্যাটসম্যানদের। ৩৮ রানের খরচায় নিয়েছেন ৩টি উইকেট। ৩টি উইকেট নিয়েছেন নুয়ান প্রদিপও।

সংক্ষিপ্ত স্কোর:

শ্রীলঙ্কা: ৫০ ওভারে ৩১৪/৮ (ফের্নান্ডো ৭, কারুনারাত্নে ৩৬, কুশল পেরেরা ১১১, কুশল মেন্ডিস ৪৩, ম্যাথিউজ ৪৮, থিরিমান্নে ২৫, থিসারা পেরেরা ২, ধনাঞ্জয়া ১৮, মালিঙ্গা ৬*, প্রদিপ ০*; শফিউল ৩/৬২, মিরাজ ১/৫৬, রুবেল ১/৫৪, মোসাদ্দেক ০/৪৫, মোস্তাফিজ ২/৭৫, সৌম্য ১/১৭, মাহমুদউল্লাহ ০/৪)।

বাংলাদেশ: ৪১.৪ ওভারে ২২৩ (তামিম ০, সৌম্য ১৫, মিঠুন ১০, মুশফিক ৬৭, মাহমুদউল্লাহ ৩, সাব্বির ৬০, মোসাদ্দেক ১২, মিরাজ ২, শফিউল ২, রুবেল ৬*, মোস্তাফিজ ১৮*; মালিঙ্গা ৩/৩৮, প্রদিপ ৩/৫১, থিসারা পেরেরা ০/৩৬, কুমারা ১/৪৫, ধনাঞ্জয়া ২/৪৯)।

ফলাফল: শ্রীলঙ্কা ৯১ রানে জয়ী।

ম্যান অব দ্য ম্যাচ: কুশল পেরেরা (শ্রীলঙ্কা)।

শফিউলকে ফেরালেন প্রদিপ

দুই বল আগেই বাংলাদেশের শেষ ভরসা মুশফিকুর রহিমকে বিদায় করেছেন নুয়ান প্রদিপ। এবার লেজ ছাঁটাইয়ের কাজটিও করছেন। শফিউল ইসলামকে বোল্ড করে ফিরিয়েছেন তিনি। ফলে বড় জয়ের পথে শ্রীলঙ্কা।

৩৯ ওভার শেষে বাংলাদেশের সংগ্রহ ৯ উইকেটে ২০৩ রান। মোস্তাফিজ ৩ ও রুবেল ১ রানে ব্যাট করছেন।

বাংলাদেশের দলীয় দুইশ

মুশফিকের বিদায়ে হার প্রায় নিশ্চিত হয়ে গেছে বাংলাদেশের। দলীয় ১৯৯ রানে ফিরেছেন তিনি। এরপর মাঠে নেমে প্রথম বলে সিঙ্গেল নিয়ে দলীয় দ্বিশতক পূর্ণ করেছেন রুবেল হোসেন। ৩৮.২ ওভারে এসেছে টাইগারদের দলীয় দুইশ। প্রথম শতকটি এসেছিল ১১৮ বলে।

মুশফিকের বিদায়ে হার দেখছে বাংলাদেশ

লেজ বেড়িয়ে গেছে আগেই। এক প্রান্তে মুশফিকুর রহিম উইকেটে ছিলেন বলেই কিছুটা আশায় বুক বেঁধে রেখেছিল টাইগাররা। কিন্তু শেষ পর্যন্ত তিনিও বিদায় নিয়েছেন। রানের গতি বাড়াতে গিয়েছিলেন তিনি। নুয়ান প্রদিপের বলে তাই স্কুপ করতে চেয়েছিলেন। ব্যাটের কানায় লেগে চলে যায় উইকেটরক্ষক কুশল মেন্ডিসের হাতে। ৮৬ বলে ৫টি চারের সাহায্যে ৬৭ রান করেছেন মুশফিক।

মিরাজের বিদায়ে হার দেখছে বাংলাদেশ

আগের ওভারেই দারুণ এক থ্রোতে মোসাদ্দেক হোসেনকে রানআউট করে বিদায় করেছেন কুশল মেন্ডিস। এবার মেহেদী হাসান মিরাজের ক্যাচ ধরে নিলেন দারুণভাবে। ধনাঞ্জয়া ডি সিলভার বলটি কাট করতে চেয়েছিলেন মিরাজ। ব্যাটের কানায় লেগে চলে যায় মেন্ডিসের হাতে। ফলে লেজ বেড়িয়ে এসেছে টাইগারদের। ৫ বলে ২ রান করেছেন মিরাজ।

৩৫ ওভার শেষে বাংলাদেশের সংগ্রহ ৭ উইকেটে ১৮৭ রান। ৬১ রানে ব্যাট করছেন মুশফিক। নতুন ব্যাটসম্যান হিসেবে মাঠে নেমেছেন শফিউল ইসলাম।  

ভুল বোঝাবুঝিতে রানআউট হয়ে বিপদ বাড়ালেন মোসাদ্দেক

লাহিরু কুমারার লেগ স্টাম্পের বাইরে রাখা ওয়াইড বলটি খেলতে পারেননি মোসাদ্দেক হোসেন। ওইদিকে উইকেটরক্ষক কুশল মেন্ডিস ঠিকভাবে বলটি ধরতে পারেননি। তাতে রান নেওয়ার জন্য ডাক দিয়েছিলেন মুশফিক। কিন্তু মেন্ডিস দ্রুত বল ধরে ফেলায় সিদ্ধান্ত বদলান তিনি। ততক্ষণে উইকেটের মাঝে মোসাদ্দেক। গ্লাভস খুলে সময় নিয়ে থ্রো করে উইকেট ভাঙেন মেন্ডিস। ফলে ষষ্ঠ উইকেট হারায় টাইগাররা। তাতে বড় চাপেই পড়েছে দলটি। ১৬ বলে ১২ রান নিয়েছেন মোসাদ্দেক।

৩৪ ওভার শেষে বাংলাদেশের সংগ্রহ ৬ উইকেটে ১৮৪ রান। ৫৯ রানে ব্যাট করছেন মুশফিক। নতুন ব্যাটসম্যান হিসেবে মাঠে নেমেছেন মেহেদী হাসান মিরাজ।  

মুশফিকের হাফসেঞ্চুরি

লক্ষ্যটা বিশাল। ৩১৫ রানের। সে লক্ষ্য তাড়ায় শুরুতেই ভেঙ্গে পরে টপ অর্ডার। ৩৯ রানেই নেই ৪ উইকেট। এরপর ইনিংস মেরামতের কাজে নেমেছেন দলের অন্যতম সেরা ব্যাটসম্যান ব্যাটসম্যান মুশফিকুর রহিম। সাব্বির রহমানের সঙ্গে দারুণ এক জুটি গড়েছিলেন। তার বিদায়ের পর হাল ধরেছেন মোসাদ্দেক হোসেনকে নিয়ে। এর মধ্যেই নিজের হাফসেঞ্চুরিও তুলে নিয়েছেন। ৬১ বলে ৪টি চারের সাহায্যে ফিফটি স্পর্শ করেছেন তিনি। তার ব্যাটের দিকেই তাকিয়ে রয়েছে বাংলাদেশ।

৩১ ওভার শেষে বাংলাদেশের সংগ্রহ ৫ উইকেটে ১৬৬ রান। মুশফিক ৫৮ ও মোসাদ্দেক ৮ রানে ব্যাট করছেন।  

সাব্বিরের বিদায়ে ভাঙল জুটি

মুশফিকুর রহিমের সঙ্গে দারুণ এক জুটি গড়েছিলেন সাব্বির। ইনিংস মেরামত করে রানের গতিও সচল রেখেছিলেন তিনি। কিন্তু কাজটা শেষ করে যেতে পারলেন না। ধনাঞ্জয়া ডি সিলভার বলে স্লগ করতে গিয়ে ধরা পড়েছেন লাহিরু থিরিমান্নের হাতে। মিড উইকেটে সহজ ক্যাচ ধরেছেন থিরিমান্নে। ৫৬ বলে ৭টি চারের সাহায্যে ৬০ রান করেছেন সাব্বির।

২৯ ওভার শেষে বাংলাদেশের সংগ্রহ ৫ উইকেটে ১৫৩ রান। ৪৬ রানে ব্যাট করছেন মুশফিক। নতুন ব্যাটসম্যান হিসেবে মাঠে নেমেছেন মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত।  

মুশফিক-সাব্বির জুটিতে শতরান

৩৯ রানে ৪ উইকেট হারিয়ে বিপদেই পড়েছিল বাংলাদেশ। সেখান থেকে দলের হাল সাব্বির রহমানকে নিয়ে ধরেছেন উইকেটরক্ষক-ব্যাটসম্যান মুশফিকুর রহিম। দেশে শুনে ব্যাট করে দলকে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছেন লক্ষ্যের দিকে। তবে কিছুটা আক্রমণাত্মক ব্যাট করছেন সাব্বির। তবে শুরুর চাপ সামলে নিয়েছেন অনেকটাই। এরমধ্যেই তাদের জুটিতে এসেছে শতরান। ৮৪ বলে জুটির শতক পূর্ণ করেন তারা। এতে সাব্বিরের অবদান ৫৫ রান, মুশফিকের ৩৩ রান।

২৭ ওভার শেষে বাংলাদেশের সংগ্রহ ৪ উইকেটে ১৪৪ রান। সাব্বির ৫৯ ও মুশফিক ৪০ রানে ব্যাট করছেন।  

সাব্বিরের হাফসেঞ্চুরি

অনেক দিন থেকেই সাব্বির রহমানের ব্যাটে রান নেই। নিউজিল্যান্ডে ক্যারিয়ারের প্রথম সেঞ্চুরি করার পর থেকে ব্যাট হাতে বিবর্ণই ছিলেন তিনি। তবে দলের খুব প্রয়োজনীয় সময়ে জ্বলে উঠেছেন এ ব্যাটসম্যান। শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে তুলে নিয়েছেন হাফসেঞ্চুরি। সবচেয়ে বড় কথা রানের গতি সচল রেখেছেন তিনি। মাত্র ৪২ বলে ফিফটি স্পর্শ করেছেন তিনি।

২৪ ওভার শেষে বাংলাদেশের সংগ্রহ ৪ উইকেটে ১৩০ রান। সাব্বির ৫০ ও মুশফিক ৩৫ রানে ব্যাট করছেন।

বাংলাদেশের দলীয় শতরান

বড় লক্ষ্য তাড়ায় শুরুতেই চার উইকেট হারিয়ে ব্যাকফুটে বাংলাদেশ। তবে পঞ্চম উইকেটে সে চাপ থেকে বেরিয়ে আসার চেষ্টা করছেন সাব্বির রহমান ও মুশফিকুর রহিম। উইকেটে নেমেই হাত খুলে খেলার চেষ্টা করছেন সাব্বির। এ দুই ব্যাটসম্যানের সাবলীল ব্যাটিংয়ে দলীয় শতকটি এসেছে অল্প সময়েই। ১৯.৪ ওভারে (১১৮ বলে) আসে এ রান। অথচ প্রথম পঞ্চাশ করতে বল খরচ করতে হয়েছিল ৭৯টি। দ্বিতীয় পঞ্চাশ আসে ৩৯ বলে। শ্রীলঙ্কা তাদের প্রথম দলীয় শতকটি করেছিল ১৩.৪ ওভারে।

২১ ওভার শেষে বাংলাদেশের সংগ্রহ ৪ উইকেটে ১০৭ রান। সাব্বির ৩৭ ও মুশফিক ২৫ রানে ব্যাট করছেন।   

মুশফিক-সাব্বির জুটিতে পঞ্চাশ

উইকেটে যে কোন জুজু নেই তা বুঝিয়ে দিচ্ছেন মুশফিকুর রহিম ও সাব্বির রহমান। দলীয় ৩৯ রানে চার টপ অর্ডার উইকেট হারিয়ে বড় চাপে পড়া দলের হাল ধরেছেন এ দুই ব্যাটসম্যান। সাবলীল ব্যাটিং করছেন দুই জনই। এরমধ্যে নিজেদের জুটিতে পঞ্চাশও পূর্ণ করেছেন। জুটিতে সাব্বিরের অবদান ২৭ রান, মুশফিকের ১২ রান। বাকি ১১ রান এসেছে অতিরিক্তের খাত থেকে।

১৮ ওভার শেষে বাংলাদেশের সংগ্রহ ৪ উইকেটে ৮৯ রান। মুশফিক ১৮ ও সাব্বির ২৭ রানে ব্যাট করছেন।  

বাংলাদেশের দলীয় পঞ্চাশ

টপ অর্ডারের সেরা চার উইকেট হ্রিয়ে শুরুতেই বড় বিপদে পড়েছে বাংলাদেশ। সে বিপদ থেকে দলের উদ্ধারকাজে নেমেছেন মুশফিকুর রহিম। সঙ্গী হিসেবে আছেন সাব্বির রহমান। ১৩.১ ওভারে (৭৯ বলে) এসেছে দলের ফিফটি। শ্রীলঙ্কা ৮২ বলে দলের সেঞ্চুরি তুলে নিয়েছিল। দলীয় ফিফটি দলটি তুলেছিল ৭.৩ ওভারে। বড় লক্ষ্য তাড়ায় শুরুতেই বড় ব্যবধানে পিছিয়ে পড়েছে টাইগাররা।

১৪ ওভার শেষে বাংলাদেশের সংগ্রহ ৪ উইকেটে ৫৫ রান। মুশফিক ৭ ও সাব্বির ৫ রানে ব্যাট করছেন।  

মাহমুদউল্লাহর বিদায়ে বড় বিপদে বাংলাদেশ

দলীয় ৩০ রানে টপ অর্ডারের ৩ উইকেট হারিয়ে চাপে পড়া বাংলাদেশ দল তাকিয়ে ছিল দুই অভিজ্ঞ ব্যাটসম্যান মুশফিকুর রহিম ও মাহমুদউল্লাহর দিকে। কিন্তু হতাশ করেছেন মাহমুদউল্লাহ। লাহিরু কুমারার খাট লেংথের বলে পেছনের পায়ে ভর দিয়ে আপার কাট করতে গিয়ে ধরা পড়েছেন থার্ডম্যানে অতিরিক্ত ফিল্ডার জয়সুরিয়ার হাতে। ১০ বলে ৩ রান করেছেন মাহমুদউল্লাহ।

১২ ওভার শেষে বাংলাদেশের সংগ্রহ ৪ উইকেটে ৩৯ রান। ৬ রানে ব্যাট করছেন মুশফিকুর রহিম। নতুন ব্যাটসম্যান হিসেবে মাঠে নেমেছেন সাব্বির রহমান।

মালিঙ্গার ইয়র্কারে বোল্ড সৌম্যও

লাসিথ মালিঙ্গার একের পর এক ইয়র্কার ফেরাতে বেশ ভুগতে হচ্ছিল সৌম্য সরকারকে। বেশ কয়েকবার ব্যাটের কানায় লেগে কোন রকমে বেঁচেছেন। তবে সব পর্যন্ত সেই ইয়র্কারেই বোল্ড হয়ে ফিরলেন সৌম্য। এর আগে অধিনায়ক তামিম ইকবালকেও একই ভাবে ফিরিয়েছেন মালিঙ্গা। ফলে বড় চাপে পড়েছে টাইগাররা। ২২ বলে ১টি চারের সাহায্যে ১৫ রান করেছেন সৌম্য।

৯ ওভার শেষে বাংলাদেশের সংগ্রহ ৩ উইকেটে ৩০ রান। দুই অপরাজিত ব্যাটসম্যান মুশফিকুর রহিম ও মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ কেউই রানের খাতা খুলতে পারেননি।

মিঠুনের বিদায়ে চাপে বাংলাদেশ

সাকিব আল হাসান না থাকায় তিন নম্বরে ব্যাট করার সুযোগ পেয়েছিলেন মোহাম্মদ মিঠুন। মূলত প্রস্তুতি ম্যাচে দারুণ ব্যাটিং করেই জায়গাটা পেয়েছিলেন। কিন্তু মূল খেলায় হতাশ করেছেন দলকে। নুয়ান প্রদিপের বলে পড়েছেন এলবিডাব্লিউর ফাঁদে। পরে রিভিউ নিয়েছিলেন। কিন্তু লাভ হয়নি। উল্টো রিভিউ খুইয়েছেন। ২১ বলে ১টি চারের সাহায্যে ১০ রান করেছেন এ ব্যাটসম্যান। ফলে বড় চাপে পড়েছে টাইগাররা।

৮ ওভার শেষে বাংলাদেশের সংগ্রহ ২ উইকেটে ৩০ রান। ১৫ রানে ব্যাট করছেন সৌম্য সরকার। নতুন ব্যাটসম্যান হিসেবে মাঠে নেমেছেন মুশফিকুর রহিম।

তামিমের বিদায়ের পর নড়বড়ে ব্যাটিং

দারুণ এক ইয়র্কারে বাংলাদেশ দলের অধিনায়ক তামিম ইকবালকে ফিরিয়েছেন লাসিথ মালিঙ্গা। এরপরও একের পর ইয়র্কারে বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানদের দিশেহারা অবস্থা করে তুলেছেন তিনি। ব্যাটের কানায় লেগেও নো-ম্যান্স ল্যান্ডে বল পড়ায় বেঁচে যান সৌম্য ও মিঠুন। কয়েকবার বেঁচেছেন বোল্ড হওয়া থেকে। তবে খোলস ভেঙ্গে রানের গতি বাড়ানোর চেষ্টা করছেন সৌম্য। মাঝে মধ্যেই ঝুঁকিপূর্ণ শট খেলছেন। কিন্তু লঙ্কান বোলারদের তোপে তা আর হয়ে উঠছে না।

৬ ওভার শেষে বাংলাদেশের সংগ্রহ ১ উইকেটে ২৫ রান। সৌম্য ১৫ ও মিঠুন ৭ রানে ব্যাট করছেন।

খালি হাতে ফিরে গেলেন তামিম

বিশ্বকাপটা ভালো যায়নি তামিম ইকবালের। বাজে সময় কাটাতে শ্রীলঙ্কা সিরিজে এসেছিলেন তিনি। মাশরাফির ইনজুরিতে পেলেন দলের অধিনায়কত্বের দায়িত্বও। কিন্তু হতাশা আরও বাড়িয়েছেন এ ওপেনার। লাসিথ মালিঙ্গার দারুণ এক ইয়র্কারে বোল্ড হয়ে গেছেন তামিম। ৫ বল খেলে কোন রান নিতে পারেননি তিনি। ফলে বড় লক্ষ্য তাড়ায় শুরুতেই চাপে টাইগাররা।

১ ওভার শেষে বাংলাদেশের সংগ্রহ ১ উইকেটে ১ রান। সৌম্য সরকার ও মোহাম্মদ মিথুন কেউই এখনও রানের খাতা খুলতে পারেননি। একমাত্র রানটি এসেছে ওয়াইড থেকে।

টাইগারদের বড় লক্ষ্য ছুড়ে দিয়েছে শ্রীলঙ্কা

দারুণ এক সেঞ্চুরি করেছেন কুশল পেরেরা। সঙ্গে কুশল মেন্ডিস ও সাবেক অধিনায়ক অ্যাঞ্জেলো ম্যাথিউজের সঙ্গে দায়িত্বশীল ব্যাটিং। সব মিলিয়ে বাংলাদেশের বিপক্ষে বড় স্কোর দ্বার করিয়েছে শ্রীলঙ্কা। নির্ধারিত ৫০ ওভারে ৮ উইকেটে ৩১৪ রান তুলেছে দলটি। টাইগারদের লক্ষ্য তাই ৩১৫ রানের।

প্রায় তিন বছর পর ওয়ানডে ম্যাচ খেলতে নেমে খারাপ বল করেননি শফিউল ইসলাম। ৬২ রান করচ করেছেন। তবে তুলে নিয়েছেন ৩টি উইকেট। মোস্তাফিজ ২টি উইকেট পেয়েছেন ৭৫ রান খরচ করে। তবে দিনের সবচেয়ে আকর্ষণীয় ব্যাপার ছিল লাসিথ মালিঙ্গার ব্যাটিংয়ে নামা। তিনি যখন ব্যাট করতে নামেন তার সঙ্গে একজন পতাকা হাতে মাঠে নামেন। ক্যারিয়ারের শেষ ওয়ানডেতে আউট হননি মালিঙ্গা। ৬ বলে ৬ রান করেছেন তিনি।

সংক্ষিপ্ত স্কোর:

শ্রীলঙ্কা: ৫০ ওভারে ৩১৪/৮ (ফের্নান্ডো ৭, কারুনারাত্নে ৩৬, কুশল পেরেরা ১১১, কুশল মেন্ডিস ৪৩, ম্যাথিউজ ৪৮, থিরিমান্নে ২৫, থিসারা পেরেরা ২, ধনাঞ্জয়া ১৮, মালিঙ্গা ৬*, প্রদিপ ০*; শফিউল ৩/৬২, মিরাজ ১/৫৬, রুবেল ১/৫৪, মোসাদ্দেক ০/৪৫, মোস্তাফিজ ২/৭৫, সৌম্য ১/১৭, মাহমুদউল্লাহ ০/৪)। 

ধনাঞ্জয়াকে ফেরালেন শফিউল

শেষ দিকে উইকেটে নেমে রানের গতি বাড়ানোর লক্ষ্যে আগ্রাসী ব্যাট চালাচ্ছিলেন ধনাঞ্জয়া ডি সিলভা। ১১ বলেই ১৮ রান করেছিলেন। নিজের দ্বাদশ বলে ছক্কা হাঁকাতে গিয়ে লং অনে ধরা পড়েছেন সাব্বির রহমানের হাতে। লম্বা সময় পর খেলতে নেমে নিজের তৃতীয় উইকেট তুলে নিয়েছেন শফিউল ইসলাম। 

ম্যাথিউজকে ফেরালেন মোস্তাফিজ

অ্যাঞ্জেলো ম্যাথিউজের ব্যাটে বড় সংগ্রহের পথে এগিয়ে যাচ্ছিল শ্রীলঙ্কা। শেষ দিকে বেশ হাত খুলে খেলার চেষ্টা করছিলেন তিনি। তবে তাকে ফিরিয়েছেন মোস্তাফিজুর রহমান। তার বলে বাউন্ডারি হাঁকাতে গিয়ে লংঅফে সাব্বির রহমানের হাতে ক্যাচ দিয়েছেন ম্যাথিউজ। ৫২ বলে ৩টি চারের সাহায্যে ৪৮ রান করেছেন তিনি। তার বিদায়ে মাঠে নেমেছেন ক্যারিয়ারের শেষ ওয়ানডে ম্যাচ খেলতে নামা লাসিথ মালিঙ্গা।

শ্রীলঙ্কার দলীয় তিনশত রান

বাংলাদেশের বিপক্ষে বড় রান সংগ্রহের পথে এগিয়ে যাচ্ছে শ্রীলঙ্কা। এর মধ্যেই তিন শত রানের কোটা পার করেছে দলটি। ৪৭.৫ ওভারে (২৮৮ বলে) এসেছে এ রান। প্রথম একশ রান করতে তারা বল খেলেছিল ৮২টি। দ্বিতীয় একশ রান করেছিল ১০১ বলে।

টিকলেন না থিসারাও

উইকেটে নেমেই রানের গতি বাড়াতে মনোযোগী ছিলেন থিসারা পেরেরা। তাই হাত খুলে খেলতে গিয়ে আউট হয়েছেন শফিউল ইসলামের বলে। এক্সট্রা কভারে সহজ ক্যাচ ধরেছেন সৌম্য সরকার। ৩ বলে ২ রান করেছেন থিসারা।

৪৫ ওভার শেষে শ্রীলঙ্কার সংগ্রহ ৫ উইকেটে ২৮১ রান। ম্যাথিউজ ৩১ রানে ব্যাট করছেন। নতুন ব্যাটসম্যান হিসেবে মাঠে নেমেছেন ধনাঞ্জয়া ডি সিলভা।

থিরিমান্নেকে ফিরিয়ে জুটি ভাঙলেন মোস্তাফিজ

সাবেক অধিনায়ক অ্যাঞ্জেলো ম্যাথিউজের সঙ্গে ভালো জুটি গড়েছিলেন লাহিরু থিরিমান্নে। চাপ সামলে রানের গতি বাড়াতে মনোযোগী হয়েছিলেন। তবে বড় ক্ষতি করার আগে তাকে ফিরিয়েছেন মোস্তাফিজুর রহমান। তার বলে পুল করতে গিয়ে ডিপ মিড উইকেটে ধরা পড়েছেন সৌম্য সরকারের হাতে। ৩০ বলে ১টি চারের সাহায্যে ২৫ রান করেছেন থিরিমান্নে।

৪৫ ওভার শেষে শ্রীলঙ্কার সংগ্রহ ২৭৫ রান। ৩৬ রানে ব্যাট করছেন ম্যাথিউজ। নতুন ব্যাটসম্যান হিসেবে মাঠে নেমেছেন থিসারা পেরেরা।

ম্যাথিউজ-থিরিমান্নে জুটিতে পঞ্চাশ

৫ রানের ব্যবধানে জোড়া উইকেট হারিয়ে কিছুটা হলেও চাপে পড়েছিল শ্রীলঙ্কা। তবে সে চাপ থেকে দলকে টেনে তুলছেন সাবেক অধিনায়ক আঞ্জেলো ম্যাথিউজ ও লাহিরু থিরিমান্নে। এর মধ্যেই নিজেদের জুটিতে পঞ্চাশ পার করেছেন তারা। ৫৭ বল আসে জুটির ফিফটি। তাতে ম্যাথিউজের অবদান ২৫ রান, থিরিমান্নের ২২ রান।

৪৪ ওভার শেষে শ্রীলঙ্কার সংগ্রহ ৪ উইকেটে ২৬৭ রান। ম্যাথিউজ ৩০ ও থিরিমান্নে ২৫ রানে ব্যাট করছেন।

রুবেলের বলে ফিরলেন মেন্ডিস

আবেদন করেননি বোলার রুবেল হোসেন। ক্যাচ ধরে আবেদন করেননি উইকেটরক্ষক মুশফিকুর রহিমও। এমনকি আম্পায়ারও আউট দেননি। ওইদিকে রিভিউ তো শুরুতেই খুইয়েছে বাংলাদেশ। কিন্তু তারপরও বল ব্যাটের কানায় লাগায় মাঠ ছাড়লেন কুশল মেন্ডিস। যদিও ফিরতে পারতেন ব্যক্তিগত ২৮ রানে। শেষ পর্যন্ত ৪৯ বলে ৪টি চারের সাহায্যে ৪৪ রান করেছেন মেন্ডিস।

৩৫ ওভার শেষে শ্রীলঙ্কার সংগ্রহ ৪ উইকেটে ২১৮ রান। ম্যাথিউজ ব্যাট করছেন ৪ রানে। নতুন ব্যাটসম্যান হিসেবে মাঠে নামা লাহিরু থিরিমান্নে উইকেট আছেন ৫ রানে।

পেরেরাকে ফিরিয়ে জুটি ভাঙলেন সৌম্য

বল হাতে নিজের দ্বিতীয় ওভারেই এ জুটি ভাঙতে পারতেন সৌম্য সরকার। সেবার কুশল মেন্ডিসের সহজ ক্যাচ ছেড়েছেন মাহমুদউল্লাহ। তবে শেষ পর্যন্ত ভয়ঙ্কর এ জুটি ভাঙলেন তিনিই। ফিরিয়েছেন সেঞ্চুরিয়ান কুশল পেরেরাকে। তার বলে সুইপ করতে গিয়েছিলেন এ ব্যাটসম্যান। ঠিকভাবে করতে না পারায় শর্ট ফাইন লেগে ধরা পড়েছেন মোস্তাফিজুর রহমানের হাতে। ৯৯ বলে ১১১ রানের দারুণ এক ইনিংস খেলেছেন পেরেরা। ১৭টি চার ও ১টি ছক্কার সাহায্যে এ রান করেছেন তিনি। তার বিদায়ে ভাঙ্গে শতরানের জুটি।

৩৩ ওভার শেষে শ্রীলঙ্কার সংগ্রহ ৩ উইকেটে ২০৮ রান। মেন্ডিস ৪২ রানে ব্যাট করছেন। নতুন ব্যাটসম্যান হিসেবে মাঠে নেমেছেন আঞ্জেলো ম্যাথিউজ।

পেরেরা-মেন্ডিস জুটিতে শতরান

কুশল মেন্ডিসকে নিয়ে আরও একটি দারুণ জুটি গড়েছেন কুশল পেরেরা। বেশ সাবলীল ব্যাট করছেন এ দুই ব্যাটসম্যান। ১০৪ বলে এসেছে এ জুটির শতরান। তাতে পেরেরার অবদান ৫৬ রান, মেন্ডিসের ৪২ রান। এর আগে কারুনারাত্নের সঙ্গে পেরেরা গড়েছিলেন ৯৭ রানের জুটি।

শ্রীলঙ্কার দলীয় দ্বিশতক

দুই কুশলের ব্যাটে বড় সংগ্রহের পথে এগিয়ে যাচ্ছে শ্রীলঙ্কা। এর মধ্যেই দলীয় দুইশত রানের কোটা পার করেছে দলটি। মাত্র ৩০.৩ ওভারে (১৮৩ বলে) এসেছে এ রান। প্রথম একশ রান করতে তারা বল খেলেছিল ৮২টি।

৩১ ওভার শেষে শ্রীলঙ্কার সংগ্রহ ২ উইকেটে ২০২ রান। পেরেরা ১১০ ও মেন্ডিস ৩৮ রানে ব্যাট করছেন।

পেরেরার সেঞ্চুরি

ওপেনার আভিস্কা ফের্নান্ডোর বিদায়ের পর মাঠে নেমেছিলেন কুশল পেরেরা। উইকেটে নেমেই হাত খুলে ব্যাট করতে থাকেন তিনি। দারুণ ব্যাটিংয়ে শ্রীলঙ্কার ইনিংসকে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছেন। নিজেও ছুঁয়েছেন তিন অঙ্কের ম্যাজিক ফিগারে। মাত্র ৮২ বলে এসেছে তার সেঞ্চুরি। এ রান করতে ১৭টি চার ও ১টি ছক্কা মেরেছেন তিনি। ক্যারিয়ারে এটা তার পঞ্চম ওয়ানডে সেঞ্চুরি। মোসাদ্দেক হোসেনের বলে চার মেরেই সেঞ্চুরি উদযাপন করেন এ ব্যাটসম্যান। 

২৮ ওভার শেষে শ্রীলঙ্কার সংগ্রহ ২ উইকেটে ১৮৪ রান। পেরেরা ১০১ ও মেন্ডিস ২৯ রানে ব্যাট করছেন।

মেন্ডিসকে জীবন দিলেন মাহমুদউল্লাহ

বাংলাদেশের ভোগান্তি বাড়িয়ে শুরু থেকেই বেশ আগ্রাসী ব্যাট করছেন দুই অপরাজিত ব্যাটসম্যান কুশল পেরেরা ও কুশল মেন্ডিস। জুটিও গড়েছেন দারুণ। সে জুটি ভাঙার দারুণ সুযোগ হাতছাড়া করলেন মাহমুদউল্লাহ। সৌম্য সরকারের বলে লং অন সীমানার উপর দিয়ে বাউন্ডারি হাঁকাতে চেয়েছিলেন মেন্ডিস। কিন্তু ঠিকভাবে করতে না পারায় ক্যাচ উঠে যায়। কিন্তু সে ক্যাচ ধরতে পারেননি মাহমুদউল্লাহ। ফলে সহজ জীবন পেলেন মেন্ডিস। এ সময় ২৮ রানে ব্যাট করছিলেন তিনি।

২৭ ওভার শেষে শ্রীলঙ্কার সংগ্রহ ২ উইকেটে ১৮০ রান। পেরেরা ৯৭ ও মেন্ডিস ২৯ রানে ব্যাট করছেন।  

পেরেরা-মেন্ডিস জুটিতে পঞ্চাশ

অধিনায়ক দিমুথ কারুনারাত্নের বিদায়ের পর দলে হাল কুশল মেন্ডিসকে নিয়ে ধরেছেন কুশল পেরেরা। উইকেটে নেমে বেশ সাবলীল ব্যাট করছেন মেন্ডিস। আগ্রাসী ব্যাটিংয়ের ধারাবাহিকতা ধরে রেখেছেন পেরেরাও। ফলে মাত্র ৪৫ বলে এসেছে এ জুটির ফিফটি। তাতে পেরেরার অবদান ৩১ রান, মেন্ডিসের ১৭ রান।

২৩ ওভার শেষে শ্রীলঙ্কার সংগ্রহ ২ উইকেটে ১৬৪ রান। পেরেরা ৮৭ ও মেন্ডিস ২৩ রানে ব্যাট করছেন।  

কারুনারাত্নেকে ফিরিয়ে জুটি ভাঙলেন মিরাজ

কুশল পেরেরার সঙ্গে দারুণ এক জুটি গড়ে দলকে বড় সংগ্রহের ভিত গড়ে দিচ্ছিলেন অধিনায়ক দিমুথ কারুনারাত্নে। তবে অবশেষে তাকে ফেরাতে পেরেছে টাইগাররা। দ্বিতীয় স্পেলে বল করতে এসে তার উইকেট নিয়েছেন মেহেদী হাসান মিরাজ। তার বলে সুইপ করতে গেলে ব্যাটের কানায় লেগে বল আকাশে উঠে গেলে ফাইন লেগে সহজ ক্যাচ ধরেন মোস্তাফিজুর রহমান। তাতে ভাঙ্গে ৯৭ রানের জুটি। ৩৭ বলে ৪টি চারের সাহায্যে ৩৬ রান করেছেন লঙ্কান অধিনায়ক।

১৫ ওভার শেষে শ্রীলঙ্কার সংগ্রহ ২ উইকেটে ১০৭ রান। ৫৫ রানে ব্যাট করছেন কুশল পেরেরা। নতুন ব্যাটসম্যান হিসেবে মাঠে নেমেছেন কুশল মেন্ডিস।

শ্রীলঙ্কার দলীয় শতরান, পেরেরার হাফসেঞ্চুরি

উইকেটে নেমে শুরু থেকেই হাত খুলে ব্যাট করছেন কুশল পেরেরা। দারুণ ব্যাটিং করে এর মধ্যেই নিজের হাফসেঞ্চুরি পূরণ করেছেন তিনি। কারুনারাত্নের সঙ্গে দারুণ জুটি গড়ে এনে দিয়েছেন দলীয় সেঞ্চুরিও। মাত্র ৩৮ বলে ১১টি চারের সাহায্যে নিজের ওয়ানডে ক্যারিয়ারের ১৫তম হাফসেঞ্চুরিটি করেন তিনি। মাঝে একবার আম্পায়ারের ভুলে আউট হয়েছিলেন। তবে রিভিউ নিয়ে সে যাত্রা বেঁচে যান তিনি। শ্রীলঙ্কার দলীয় সেঞ্চুরিটি আসে ১৩.৪ ওভারে (৮২ বলে)। প্রথম ফিফটিটি এসেছিল মাত্র ৩৪ বলে।

১৪ ওভার শেষে শ্রীলঙ্কার সংগ্রহ ১ উইকেটে ১০৬ রান। পেরেরা ৫৪ ও কারুনারাত্নে ৩৬ রানে ব্যাট করছেন।  

সফল রিভিউতে বাঁচলেন পেরেরা

শফিউল ইসলামের করা ১২তম ওভারের দ্বিতীয় বলে কুশল পেরেরাকে পরাস্ত করেছিলেন। ডান দিকে ঝাঁপিয়ে বল ধরে আবেদন করেছিলেন উইকেটরক্ষক মুশফিকুর রহিম ও বোলার দুইজনই। আবেদনে সাড়াও দিয়েছিলেন আম্পায়ার। রিভিউর আবেদন করেন পেরেরা। রিপ্লেতে দেখা যায় বল ব্যাটে লাগেনি। ফলে বেঁচে যান পেরেরা। এ সময় ৩৯ রানে ব্যাট করছিলেন তিনি।

১২ ওভার শেষে শ্রীলঙ্কার সংগ্রহ ১ উইকেটে ৮৫ রান। পেরেরা ৪০ ও কারুনারাত্নে ৩২ রানে ব্যাট করছেন।  

কারুনারাত্নে-পেরেরা জুটিতে পঞ্চাশ

দলীয় ১০ রানেই প্রথম উইকেট হারিয়েছিল শ্রীলঙ্কা। তখন কিছুটা দেখে শুনেই ব্যাট করছিল লঙ্কানরা। কিন্তু তিন নম্বরে কুশল পেরেরা নেমেই রানের গতি বাড়াতে মনোযোগ দেন। শুরু থেকেই আগ্রাসী ব্যাট করে এর মধ্যেই কারুনারাত্নের সঙ্গে পঞ্চাশ রানের জুটি গড়েছেন। মাত্র ৩৪ বলে আসে তাদের জুটির ফিফটি। এরপরও তাণ্ডব চালিয়ে যাচ্ছেন।

১০ ওভার শেষে শ্রীলঙ্কার সংগ্রহ ১ উইকেটে ৭৭ রান। কারুনারাত্নে ৩৫ ও পেরেরা ২৯ রানে ব্যাট করছেন। 

শ্রীলঙ্কার দলীয় ফিফটি

শুরুটা কিছুটা ধীর গতিতেই করেছিল শ্রীলঙ্কা। তবে ওপেনার আভিস্কা ফের্নান্ডোর বিদায় যেন শাপেবর হয় দলটির। উইকেটে নেমেই বেশ হাত খুলে ব্যাটিং করছেন কুশল পেরেরা। এর মধ্যেই অধিনায়ক দিমুথ কারুনারাত্নেকে নিয়ে দলীয় ফিফটি তুলে নিয়েছেন তিনি। ৭.৩ ওভারে (৪৫ বলে) এসেছে দলীয় হাফ সেঞ্চুরি।

৮ ওভার শেষে শ্রীলঙ্কার সংগ্রহ ১ উইকেটে ৫৪ রান। পেরেরা ১৯ বলে ২৭ রান তুলে উইকেটে আছেন। কারুনারাত্নে ব্যাট করছেন ১৯ রানে।

ফের্নান্ডোকে ফেরালেন শফিউল

শেষ বার বাংলাদেশ জাতীয় দলের জার্সিতে ওয়ানডে ম্যাচ খেলেছিলেন প্রায় তিন বছর আগে আগে। লম্বা সময় ফের জাতীয় দলে ফিরে শুরুতেই টাইগারদের হয়ে লঙ্কান শিবিরে আঘাত হেনেছেন শফিউল ইসলাম। ওপেনার আভিস্কা ফের্নান্ডোকে ফিরিয়েছেন তিনি। তার অফ স্টাম্পের বেশ বাইরে রাখা বলে জায়গায় দাঁড়িয়ে কাট করতে গিয়েছিলেন তিনি। তবে স্লিপে সৌম্য সরকারের হাতে ধরা পড়েছেন এ ওপেনার। ১৩ বলে ৭ রান করেছেন তিনি।

দলীয় ১০ রানে পড়েছে শ্রীলঙ্কার প্রথম উইকেট। ৪ ওভার শেষে শ্রীলঙ্কার সংগ্রহ ১ উইকেটে ১৩ রান। ৫ রানে ব্যাট করছেন কারুনারাত্নে। নতুন ব্যাটসম্যান হিসেবে মাঠে নেমেছেন কুশল পেরেরা।

শ্রীলঙ্কা একাদশ: দিমুথ কারুনারাত্নে, কুশল পেরেরা, আভিস্কা ফের্নান্ডো, কুশল মেন্ডিস, আঞ্জেলো ম্যাথিউজ, লাহিরু থিরিমান্নে, ধনাঞ্জয়া ডি সিলভা, থিসারা পেরেরা, নুয়ান প্রদিপ, লাহিরু কুমারা ও লাসিথ মালিঙ্গা।

বাংলাদেশ একাদশ: তামিম ইকবাল, সৌম্য সরকার, মোহাম্মদ মিঠুন, মুশফিকুর রহিম, মাহমুদউল্লাহ, সাব্বির রহমান, মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত, মেহেদী হাসান মিরাজ, মোস্তাফিজুর রহমান, রুবেল হোসেন ও শফিউল ইসলাম।

টাইগারদের একাদশে শফিউল

দলে বড় পরিবর্তন অনুমিত। কারণ বিশ্বকাপে শেষ ম্যাচে যারা খেলেছিলেন তাদের অনেকেই নেই এ সিরিজে। দলে বড় পরিবর্তনের পরও একাদশে জায়গা হয়নি তাসকিন আহমেদের। প্রস্তুতি ম্যাচে প্রত্যাশা মেটাতে পারেননি বলেই হয়তো নেওয়া হয়নি তাকে। তবে দুদিন আগে হঠাৎ দলে জায়গা পাওয়া শফিউল ইসলাম রয়েছেন একাদশে। তবে সাকিবের জায়গায় বিশেষজ্ঞ কোন স্পিনারকে নেওয়া হয়নি একাদশে। সেক্ষেত্রে মেহেদী হাসান মিরাজ ও মোসাদ্দেক হোসেন সৈকতের উপর নির্ভর করতে হবে টাইগারদের।

টস হেরে ফিল্ডিংয়ে বাংলাদেশ

বিশ্বকাপটা টাইগারদের মোটেও ভালো যায়নি। এক অর্থে ব্যর্থই হয়েছে তারা। সে ব্যর্থতা ঢাকার মিশনে এবার শ্রীলঙ্কায় তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজে আথে নামছে বাংলাদেশ। প্রথম ম্যাচে এদিনের শুরুটা ভালো হয়নি টাইগারদের। টস হেরেছেন ভারপ্রাপ্ত অধিনায়ক তামিম ইকবাল খান। লঙ্কান অধিনায়ক দিমুথ কারুনারাত্নে টস জিতে বেছে নিয়েছেন ব্যাটিং। অর্থাৎ প্রথমে ফিল্ডিং করতে হবে বাংলাদেশকে। বাংলাদেশ সময় বেলা ৩টায় শুরু হবে ম্যাচটি।

মাইলফলকের সামনে মুশফিক-মাহমুদউল্লাহ

এ ম্যাচ দিয়ে নিজের ২১৪তম ম্যাচ খেলবেন মুশফিকুর রহিম। ব্যাট হাতে নামলে খেলবেন ২০০তম ইনিংস। ওয়ানডে ক্যারিয়ারে দাঁড়িয়ে ছয় হাজার রান পূর্ণ করার সামনে। ১৯৯ ইনিংসে ব্যাট হাতে নেমে ৩৫.৫৯ ব্যাটিং গড়ে করেছেন ৫৯২৫ রান। মাইলফলক স্পর্শ করতে আর চাই ৭৫ রান। তামিম ইকবাল ও সাকিব আল হাসানের পর তৃতীয় বাংলাদেশী ক্রিকেটার হিসেবে এ কীর্তি গড়ার সামনে মুশফিক। অন্যদিকে ১৮২টি ওয়ানডে ম্যাচ খেলেছেন মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ। রান করেছেন ৩৯৭৬। আর ২৪ রান করলেই চার হাজার রানের মাইলফলক স্পর্শ করবেন তিনি। তামিম, সাকিব ও মুশফিকের পর চতুর্থ ব্যাটসম্যান হিসেবে চার হাজারের রানের এ কীর্তি গড়বেন সাইলেন্ট কিলার।  

মালিঙ্গার শেষ ম্যাচ

এই সিরিজের প্রথম ম্যাচ খেলেই আন্তর্জাতিক ক্রিকেটকে বিদায় বলবেন লঙ্কান ইতিহাসের অন্যতম সেরা পেসার লাথিস মালিঙ্গা। মালিঙ্গার বিদায়ী ম্যাচ বলে কলম্বোয় শুক্রবার সব আলো তাকে ঘিরেই। এরমধ্যেও লাগানো হয়েছে বিশাল সব প্লাকার্ড। প্রেমাদাসা স্টেডিয়ামের সব টিকেট এরমধ্যেই বিক্রি হয়ে গেছে। সিরিজের শুরুর ম্যাচটা তাই মালিঙ্গার ম্যাচ বলবে অত্যুক্তি হবে না।

বিশ্বকাপ ক্ষতে প্রলেপ দেওয়ার মিশন

বিশ্বকাপে মোটা দাগেই ব্যর্থ হয়েছে বাংলাদেশ। লক্ষ্য ছিল সেমি-ফাইনাল। সে লক্ষ্য তো পূরণ হয়নি উল্টো ১০ দলের বিশ্বকাপে আট নম্বর হয়ে দেশে ফিরেছে টাইগাররা। তাই বিশ্বকাপের ব্যর্থতা ঢাকার লক্ষ্যই এখন শ্রীলঙ্কায়। কিন্তু সেখানেও শুরুতেই বড় ধাক্কা। ইনজুরির কারণে শেষ মুহূর্তে ছিটকে গেছেন নিয়মিত অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজা। ছিটকে গেছেন বিশ্বকাপে নজর কাড়া মোহাম্মদ সাইফউদ্দিনও। ব্যক্তিগত কারণে ছুটিতে থাকা বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসানও নেই। ছুটি নিয়েছেন লিটন কুমার দাস। তাই বেশ বড় চ্যালেঞ্জই অপেক্ষা করছে লঙ্কায়। সেরা স্কোয়াড নিয়ে শ্রীলঙ্কায় যেতে না পারা বাংলাদেশ দলকে নেতৃত্ব দেবেন তামিম ইকবাল। যারও বিশ্বকাপটা কেটেছে বড় অস্বস্তিতে।

বিশ্বকাপের পরপর হওয়ায় শ্রীলঙ্কায় তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজ নিয়ে উত্তাপ অতটা চড়া হয়নি। কিন্তু অস্বস্তিতে থাকা একটা দল এমন একটা সিরিজের ফল নিজেদের দিকে আনতে পারলে ক্ষতে একটা প্রলেপের কাজও করতে পারে। বাংলাদেশের দিক থেকে তাই তিন ম্যাচের এই ওয়ানডে সিরিজ অনেকটা ক্ষতে প্রলেপ দেওয়ারই মিশন। আনকোরা দল নিয়ে গিয়ে বিশ্বকাপে ৬ষ্ঠ হওয়ার পরও লঙ্কানরাও সুখে নেই। লাসিথ মালিঙ্গা অবসরে যাচ্ছেন, কোচ চণ্ডিকা হাথুরুসিংহের থাকা না থাকা নিয়েও আলাপ তুমুল।

Stay updated on the go with The Daily Star Android & iOS News App. Click here to download it for your device.

Grameenphone and Robi:
Type START <space> BR and send SMS it to 2222

Banglalink:
Type START <space> BR and send SMS it to 2225

পাঠকের মন্তব্য

Top