নাগরিকত্ব সংশোধন আইন: পশ্চিমবঙ্গে ৫ ট্রেনে আগুন | The Daily Star Bangla
০৭:৪১ অপরাহ্ন, ডিসেম্বর ১৪, ২০১৯ / সর্বশেষ সংশোধিত: ০৭:৪৪ অপরাহ্ন, ডিসেম্বর ১৪, ২০১৯

নাগরিকত্ব সংশোধন আইন: পশ্চিমবঙ্গে ৫ ট্রেনে আগুন

স্টার অনলাইন রিপোর্ট

ভারতে বিতর্কিত নাগরিকত্ব সংশোধন আইনের প্রতিবাদে উত্তপ্ত হয়ে উঠেছে পশ্চিমবঙ্গ। বাংলাদেশের সীমান্তবর্তী মুর্শিদাবাদ জেলায় আজ শনিবার পাঁচটি খালি ট্রেনে আগুন লাগানো হয়েছে। এছাড়াও একটি স্টেশনসহ আগুন দেওয়া হয়েছে ১৫টি বাসে।

‘ধর্মীয় বৈষম্যমূলক’ এই আইন পাস হওয়ার পর থেকেই ভারতের উত্তর পূর্বাঞ্চলের রাজ্যগুলোয় অগ্নিগর্ভ পরিস্থিতি তৈরি হয়। আসামের গোহাটিতে চলছে টানা কারফিউ। পুলিশের গুলিতে দুজন বিক্ষোভকারী সেখানে নিহত হয়েছেন। মেঘালয় ও ত্রিপুরাতেও নিরাপত্তা বাহিনীর সঙ্গে ব্যাপক সংঘর্ষে জড়িয়েছে বিক্ষোভকারীরা। শুরুতে পশ্চিমবঙ্গের পরিস্থিতি শান্ত থাকলেও শুক্রবার থেকে সেখানেও বিক্ষোভ শুরু হয়েছে।

নাগরিকত্ব আইন সংশোধন নিয়ে শুরু থেকেই প্রতিবাদে সরব পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এনআরসি ও নাগরিকত্ব আইন তিনি পশ্চিমবঙ্গে কার্যকর হতে দেবেন না বলেও রাজ্যবাসীকে আশ্বস্ত করেছেন। এর বিরুদ্ধে নিয়মতান্ত্রিক আন্দোলন চালানোর কথাও বলেন তিনি। তার আশ্বাসের পরও এদিন বিক্ষোভে উত্তাল হয়ে ওঠে পশ্চিমবঙ্গ।

এনডিটিভির খবরে বলা হয়, মুর্শিদাবাদ ও হাওড়া জেলার বিভিন্ন জায়গায় দফায় দফায় রেল অবরোধ করে বিক্ষোভকারীরা। পাশাপাশি তারা আগুন লাগিয়ে দেয় রাজ্য পরিবহন দফতরের অধীনস্থ তিনটি সরকারি বাসসহ মোট ১৫টি বাসে। এই পরিস্থিতিতে মমতা বলেছেন, সরকারি সম্পত্তি বিনষ্টে জড়িতদের বিরুদ্ধে কঠোর আইনি ব্যবস্থা নেবেন তিনি।

শনিবার মমতা ফের বলেন, জাতীয় নাগরিক পঞ্জি এবং সংশোধিত নাগরিকত্ব আইন তিনি পশ্চিমবঙ্গে কার্যকর হতে দেবেন না। তিনি বলেন, ‘‘নিশ্চিন্তে থাকুন, বাংলায় সংশোধিত নাগরিকত্ব আইন এবং জাতীয় নাগরিক পঞ্জি বাংলায় কার্যকরী হচ্ছে না। এখানে আমাদের সরকার। কেন্দ্রীয় সরকার আইন পাশ করলেও রাজ্যকেই তা কার্যকর করতে হয়। আমরা এখানে এনআরসি বা ক্যাব করতে দেব না তা বলেই দিয়েছি।”

Stay updated on the go with The Daily Star Android & iOS News App. Click here to download it for your device.

Grameenphone and Robi:
Type START <space> BR and send SMS it to 2222

Banglalink:
Type START <space> BR and send SMS it to 2225

পাঠকের মন্তব্য

Top